19 C
Kolkata

Bratya Basu: ‘ব্যতিক্রমী নিয়োগ বাতিল করে, যোগ্য প্রার্থীদের চাকরি দেওয়া হবে’, আশ্বাস শিক্ষামন্ত্রীর

নিজস্ব প্রতিবেদন: পুজোর আগে দেড় হাজার নিয়োগের নির্দেশ দিয়েছে আদালত। নিয়োগ দুর্নীতি নিয়ে চলছে সিবিআই-ইডি তদন্ত। তারপরেও আন্দোলনের পথ থেকে সরছেন না যোগ্য চাকরি প্রার্থীরা। এই আবহে এবার শিক্ষক নিয়োগ সংক্রান্ত বিষয়ে কলকাতা হাইকোর্টে হলফনামা পেশ করেছে রাজ্য সরকার। মঙ্গলবার এমনটাই জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসু। তিনি বলেন, ‘যে সব ক্ষেত্রে ব্যতিক্রমী নিয়োগ করা হয়েছে,তা বাতিল করে যোগ্য প্রার্থীদের চাকরি দেওয়া হবে।’

এদিন সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘সরকারের ওপর আস্থা রেখে আন্দোলন প্রত্যাহার করে নিন। পুজোর সময় বাড়ি ফিরে যান। পরিবারের সঙ্গে সময় কাটান।’ যদিও যতক্ষণ না সরকারের কথা বাস্তবে রূপায়িত হচ্ছে, চাকরির নিয়োগপত্র হাতে আসছে, ততক্ষণ আন্দোলন প্রত্যাহার করতে রাজি নন, আন্দোলনরত চাকরিপ্রার্থীরা।

আরও পড়ুন:  KIFF: KIFF- এ পর্যটন দপ্তরের বিশেষ প্রচারাভিযান

ব্রাত্য বসু জানিয়েছেন, ‘তালিকা না মেনে নিয়োগ হয়েছে, এমন কোনও ব্যতিক্রম যদি চিহ্নিত করা যায়, তাহলে আদালতের নির্দেশ পেলে তা বাতিল করা হবে। তিনি আরও বলেন, ‘আদালতের মতো সরকারও চায় দ্রুত সব জটিলতা কাটিয়ে নিষ্পত্তি হোক। সে কারণে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নতুন পদ তৈরি করতে চেয়েছেন বলেও উল্লেখ করেছেন তিনি।

তিনি বলেন, গ্রুপ সি-তে অতিরিক্ত ১৯৫০ টি শূন্যপদ, গ্রুপ ডিতে অতিরিক্ত ৪৩০০ শূন্যপদ, শিক্ষকদের ক্ষেত্রে ৩৪০০ অতিরিক্ত শূন্যপদ তৈরি করতে হবে। অর্থাৎ সব মিলিয়ে প্রায় ৯৭০০ অতিরিক্ত পদ তৈরির কথা বলেছেন মুখ্যমন্ত্রী। মেধা তালিকা এবং ওয়েটিং লিস্ট-এ যাঁদের নাম আছে, তাঁদের প্রত্যেককে চাকরি দিতে রাজ্য উদ্যোগী বলে জানিয়েছেন ব্রাত্য। সে ক্ষেত্রে ব্যতিক্রমী নিয়োগ বাতিল করে ওয়েটিং লিস্ট-এ থাকা যোগ্য প্রার্থীদের নিয়োগ করা হবে। যদিও, শিক্ষামন্ত্রীর কথায় মোটেও আশ্বস্ত হচ্ছেন না আন্দোলনরত চাকরি প্রার্থীরা। তাঁদের স্পষ্ট জবাব, সুপারিশ না পেলে তাঁরা আন্দোলন চালিয়ে যাবেন।

আরও পড়ুন:  Exclusive: পথ চলতেই বিপদ, ভেঙে রয়েছে ম্যানহোল-রাস্তা

Featured article

%d bloggers like this: