34 C
Kolkata

KALIGHAT BLOOD DONATION: মুখ্যমন্ত্রীর অনুপ্রেরণায় কালীঘাটে রক্তদান

অর্পিতা শীল ও শ্রাবণী পাল: গত রবিবার ছিল থ্যালাসেমিয়া দিবস। রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মুখে রক্তদান শিবিরের আয়োজন করার কথা শোনা গেছে। গরমের সময়ে রক্তের অভাব দেখা দিতে পারে। তাই রাজ্য এবং কলকাতা পুলিস-সহ সংগঠনগুলিকে উদ্যোগী হতে বলেছেন তিনি। এরপরই ধীরে ধীরে শিবিরের সংখ্যা বাড়তে থাকে। রবিবার কালীঘাট মহামায়া সংঘ ও পাঠাগারের পক্ষ থেকে আয়োজন করা হয়েছিল রক্তদান শিবির ও স্বাস্থ্য পরীক্ষার। সকাল ১০টায় শুরু হয় রক্তদান। বিশেষ অতিথি হিসেবে হাজির ছিলেন বিধায়ক দেবাশিস কুমার, এমআইসি সন্দীপ রঞ্জন বক্সী, স্থানীয় কাউন্সিলর প্রবীর মুখোপাধ্যায়, এমএমআইসি বৈশ্বানর চ্যাটার্জি। ছিলেন মহামায়া সংগঠনের সম্পাদক অভিজিৎ মুখার্জি। প্রত্যেকের মুখেই মুখ্যমন্ত্রীর অনুপ্রেরণার কথা ফুটে ওঠে। মহিলা, পুরুষ নির্বিশেষে এইদিন রক্ত দিতে উদ্যোগী হয়ে শিবিরে আসেন। গ্লুকোজের জল, খাবার, পুরস্কারের ব্যবস্থাও এইদিন করা হয়েছিল ক্লাবের পক্ষ থেকে। ক্লাবের বাইরে বসেছিলেন চিকিৎসক। রক্তচাপ, ওজন পরিমাপের পর তা সঠিক থাকলে তবেই দেওয়া হচ্ছিল রক্তদানের অনুমতি। একইসঙ্গে হাজির ছিল থ্যালাসেমিয়া প্রিভেনশন ফেডারেশন ‘সিরাম’। বিনামূল্যে স্বাস্থ্য পরীক্ষার ব্যবস্থা করা হয়েছিল সেখানে। দেবাশিস কুমার, সন্দীপ বক্সী, প্রবীর, মুখোপাধ্যায় নিজেদের ছাত্র জীবনে রক্তদানের স্মৃতিচারণ করেছেন কী-খবরের কাছে। দেবাশিস কুমার জানিয়েছেন, শরীর ঠিক থাকলে তিনি এই শিবিরেও রক্ত দিতেন। প্রসঙ্গত, কিছুদিন আগেই তিনি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। বহু মানুষের রক্তদানের উদ্যোগ দেখে খুশি উদ্যোক্তা- সহ ক্লাবের সকলেই। অসুস্থ হয়ে পড়েন ৫৫ বছরের এক রক্তদাতা। তাঁর যথোপযুক্ত সেবাও করে ক্লাবের সদস্যরা। অন্যদিকে, একদিন আগে দ্বিতীয় ডোজ নেওয়া এক ব্যক্তিকেও রক্ত দিতে দেওয়া হয়নি নিয়ম মেনেই। যথাযত বিধি মেনেই শিবির সম্পূর্ণ হয় মুখ্যমন্ত্রীর বাড়ির পাড়ার কাছে।

আরও পড়ুন:  Mamata Banerjee: রক্তের মমতা
আরও পড়ুন:  Mamata Bannerjee Asansol: পোস্টার হাতে আসানসোলে 'দিদি'র দরবারে

Related posts:

Featured article