34 C
Kolkata

kolkata: শ্রদ্ধা-স্মরণে কবিগুরু

নিজস্ব প্রতিবেদন:“আজ বারি ঝরে ঝরঝর ভরা বাদরে,আকাশ-ভাঙা আকুল ধারা কোথাও না ধরে”- গানটির সাথে অবিকল মিলে গেল ২৫ শে বৈশাখে কলকাতার সকাল। কবিগুরুর জন্মবার্ষিকীতে আকাশের মুখ-ভার ছিল। হালকা ঝোড়ো হাওয়া সাথে বৃষ্টি। প্রতিকূল পরিস্থিতি থাকা সত্ত্বেও রবি ঠাকুরকে শ্রদ্ধাঞ্জলি জানাতে ভোলেনি শহরবাসী। জোড়াসাঁকো থেকে শান্তিনিকেতন মানুষ মেতে উঠেছিল কবির গানে। ভোরে উঠে সেজে-গুজে হাতে সাদা ফুল অর্পণ করে শুরু হল অনুষ্ঠান। “পাগলা হওয়ার বাদল দিনে” কিংবা “তোমায় দেখছি শারদপ্রাতে” গানে-নাচে মেতে উঠছিল সবাই।সোমবার বিকেলের দিকে ক্যাথিড্রাল রোডে রবীন্দ্রসদনে রাজ্যের তরফে কবিগুরুকে শ্রদ্ধা জানাতে একটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছিল। সেখানে ছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, মন্ত্রী ইন্দ্রনীল সেন, ব্রাত্য বসু-সহ বহু বিশিষ্টজন। অনুষ্ঠানে মন্ত্রী ইন্দ্রনীল সেনের সঙ্গে গলা মেলালেন মুখ্যমন্ত্রী। গাইলেন ‘দাঁড়িয়ে আছ তুমি আমার গানের ওপারে’। মুখ্যমন্ত্রীকে গান শোনানোর আবদার করেছিলেন ইন্দ্রনীল সেনই। সেই আবদার রেখে মন্ত্রীর সঙ্গে গলা মেলান মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। একসাথে পুরো গানটাই গাইলেন তিনি।নচিকেতা, বাবুল সুপ্রিয়ও ছিলেন সেখানে । মুখ্যমন্ত্রী সিন্থেসাইজারও বাজিয়েছিলেন। এদিন নোবেল চুরি প্রসঙ্গে একরাশ দুঃখপ্রকাশ করেছেন।দীর্ঘ দু’বছর পর জোড়াসাঁকো তে কবিগুরু রবীন্দ্রনাথের জন্মবার্ষিকীতে এসে অনুষ্ঠানে যোগদান ও মূর্তিতে মাল্যদান করে ভীষণভাবে শান্তি ও মানসিক তৃপ্তি হচ্ছে।জোড়াসাঁকোতে এসে এমনটাই জানিয়েছেন কলকাতার মহানাগরিক ফিরহাদ হাকিম। তাঁর কথায়, বিগত দু’বছর জোড়াসাঁকোতে আসলেও শুধুমাত্র মাল্যদান করে চলে যেতে হয়েছিল। তবে এবছর করোনা কমতেই তা মহা সমারোহে পালিত হয়েছে, তাতে মনে হয়েছে জীবন ফিরে পাওয়া। গান-কবিতা নাচের মাধ্যমে কবিকে স্মরণ। অন্যদিকে, জোড়াসাঁকোতে এসে বিজেপির সর্ব ভারতীয় সহ সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেছেন, রবীন্দ্রনাথ সকলের, সবাই সবার মতন করে পালন করছে, সমাজের বিভিন্ন জায়গায় বিভিন্ন ভাবে মানুষ রবীন্দ্রনাথ কে স্মরণ করেছেন। পাশাপাশি বিজেপির তরফেও ফুল ও মাল্যদানের মাধ্যমে কবিগুরুকে স্মরণ ও প্রণাম জানানো হয়েছে।বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ১৬১ তম জন্মজয়ন্তী। সেই উপলক্ষ্যে বিভিন্ন জায়গায় অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। গানে-কবিতায় কবিকে বরণ করে নেওয়া হয়। ১২৬৮ সালের ২৫ শে বৈশাখের পূণ্য লগ্নে কলকাতার জোড়াসাঁকোর ঠাকুর পরিবারে জন্মগ্রহণ করেছিলেন রবীন্দ্রনাথ।বহুমুখী প্রতিভার অধিকারী রবীন্দ্রনাথ ছিলেন একাধারে কবি, ঔপন্যাসিক, সংগীত রচয়িতা-সুরকার, নাট্যকার, চিত্রশিল্পী,, ছোটগল্পকার, প্রাবন্ধিক, অভিনেতা, সংগীতশিল্পী ও দার্শনিক।

আরও পড়ুন:  Metro: নিত্যযাত্রীদের জন্য সুখবর
আরও পড়ুন:  COVID-19: করোনা গ্রাফ উর্দ্ধমুখী, বেসরকারি হাসপাতালে বাড়ানো হচ্ছে বেডের সংখ্যা

Related posts:

Featured article