24 C
Kolkata

দরজায় কড়া নাড়ছে শীত

নিজস্ব সংবাদদাতা : দেশের প্রায় সব জায়গা থেকেই বিদায় নিয়েছে বর্ষা। আর এবার আগমনের পালা শীতের। ক্যালেন্ডার বলছে সবে নভেম্বরের শুরু কিন্তু দেশের বিভিন্ন প্রান্তে তাপমাত্রা যে হারে নামতে শুরু করেছে অন্যান্য বছর এমনটা হয় না বলেই জানিয়েছেন আবহাওয়াবিদরা। তাঁদের মতে এবছর এমন ঠান্ডা পড়বে যা গত ৫৮ বছরের রেকর্ডকে ভেঙে দেবে। ইতিমধ্যেই কলকাতার শহরতলি এবং তার আশেপাশে কুয়াশা দেখা গেছে।যদিও বাংলাতে এখনও সেভাবে শীত পড়েনি। তবে রাতের দিকে এবং ভোরবেলাতে হালকা চাদর মুড়ি দিয়ে শুতে হচ্ছে। দিনের বেলাতে তাপমাত্রা এখনও ওতটা নিচে নামেনি। তবে আগামী দুইদিনের মধ্যে তাপমাত্রার পারদ নামবে বলে ইঙ্গিত হাওয়া অফিসের । আলিপুর জানাচ্ছে শহরের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা থাকবে ৩৩ ডিগ্রি সেলসিয়াসের কাছাকাছি আর সর্বনিম্ন তাপমাত্রা থাকবে ২১ ডিগ্রি সেলসিয়াসের কাছাকাছি। বাতাসে আপেক্ষিক আর্দ্রতার পরিমাণ ৫৬ শতাংশের কাছাকাছি থাকবে। ওদিকে রাজধানী দিল্লিতে তাপমাত্রা ঘোরাফেরা করছে ১৫-১৭ ডিগ্রির মধ্যে। দিল্লির পাশাপাশি তাপমাত্রার পারদ অনেকটাই নেমেছে লুধিয়ানা, পাঞ্জাব, পুনে ও দেরাদুনে। সেখানে তাপমাত্রা ১৪ ডিগ্রির কাছাকাছি আছে। কাশ্মীরে তাপমাত্রা শূন্য তে পৌঁছে গেছে । বর্তমানের এই পরিস্থিতিকে লা নিনা অবস্থা বলছে আবহাওয়া দফতর। এরফলে আরও বেশি করে ঠান্ডা পড়বে। আর এই শহরগুলি এত ঠান্ডা পড়ছে বলে ইতিমধ্যেই সমস্ত শীতের পোশাক নামাতে হয়েছে মানুষজনদের। নাহলে এই শীতে টিকে থাকা মুশকিল।এখনই যদি এই অবস্থা হয় তাহলে সময় তো এখনো পড়ে আছে।আবহাওয়াবিদরা বলছেন এবারে যে হারে শীত পড়বে তা বাকি সমস্ত কিছুকে ছাড়িয়ে যাবে। আর এক থেকে দু সপ্তাহের মধ্যেই শীতের কামড় মালুম হবে বলে জানিয়েছেন আবহাওয়া বিশেষজ্ঞরা।

আরও পড়ুন:  Exclusive: পথ চলতেই বিপদ, ভেঙে রয়েছে ম্যানহোল-রাস্তা

Featured article

%d bloggers like this: