25 C
Kolkata

Happy Birthday Tarun Kumar: টলিউডের ”বুড়োদা”

মনামী রায় : উত্তমকুমারের ভাষায়, তরুণ কুমার ছিলেন অভিনয়ের সাধক। তরুণ কুমারের আগে পর্যন্ত, ক্যামিও চরিত্র এবং পার্শ্বচরিত্রে যাঁরা অভিনয় করতেন মানুষ তাঁদের সেরকম ভাবে মনে রাখতেন না। মহানায়ক দাদার উজ্জ্বল ছটার নিচে হয়তো কিছুটা ম্লান হয়ে গিয়েছিল তাঁর প্রতিভার দ্যুতি। ১৯৫৪ সালের ”ঝিন্দের বন্দি” সিনেমাতে একটি ভিলেনের চরিত্রে উত্তম কুমারের বিপরীতে তরুণ বাবুর আত্মপ্রকাশ। স্টুডিওপাড়ায় বুড়ো দা বলেই পরিচিত ছিলেন মজলিশী এই মানুষটি। নিন্দুকেরা বলত তিনি নাকি উত্তম কুমারের জন্য সুযোগ পেতেন। কিন্তু তাঁর সহজ ব্যবহার এবং অভিনয়ের প্রতিভা সকলকে চুপ করিয়ে দিয়েছিল।

”সপ্তপদী”, ”ছদ্দবেশী”, ”জীবন-মৃত্যু”, ”দেওয়া-নেওয়া”, ”কাল তুমি আলেয়া” এরকম আরও বহু ছবিতে তাঁর পার্শ্বচরিত্রের অভিনয় দর্শক আজও মনে রেখেছে। ”মিস প্রিয়ম্বদা” ছবিতে ভানু বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে তাঁর অভিনয় বাঙালি কোনোদিন ভুলতে পারবেনা। অভিনেত্রী সুভ্রাতা চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গে ১৯৬২ সালে তরুণ বাবু গাঁটছড়া বাঁধেন। কথায় বলে স্ত্রী ভাগ্যে উন্নতি। তাই হয়তো ১৯৬৬ সালে ”দাদাঠাকুর” সিনেমায় অভিনয়ের জন্য উনি প্রেসিডেন্ট অ্যাওয়ার্ড পান। শুধু পর্দা নয়, অভিনয় জীবনে তুঙ্গে থাকাকালীন তিনি বাংলার রঙ্গমঞ্চও কাঁপাতেন।

আরও পড়ুন:  Covid 19 West Bengal: রাজ্যজুড়ে সত্যি কি নির্মূল করোনা?

সাতের দশকে, ওনার একটি নাটক ”নহবত” সাফল্যের সঙ্গে টানা ৭ বছর ধরে মঞ্চস্থ হয়। দাদার প্রতি তাঁর ছিল অগাধ ভালোবাসা ও শ্রদ্ধা। তাই উত্তম কুমারের স্মৃতিকে বাঁচিয়ে রাখতে তিনি তৈরী করেন ”উত্তম মঞ্চ”। দক্ষিণ কলকাতার একটি অভিজাত থিয়েটার মঞ্চ। ব্যাক্তিগত জীবনে তিনি মিষ্টি খেতে ভীষণ ভালোবাসতেন। তরুণ কুমার মানুষটা যেমন বাঁধা ক্ষতে বাঁধা ছিলেননা কোনোদিন, তেমনি তাঁর পছন্দ ছিল তাঁর মত সবার থেকে আলাদা। মিষ্টি দইয়ের সাথে বোঁদে তাঁর ছিল সবচেয়ে পছন্দের। মহানায়িকা সুচিত্রা সেনের তিনি ছিলেন পরম বন্ধু।

আটের দশকে কোন এক সময় উনি সুচিত্রা সেনের কাছে যান তাঁরই পরিচালনায় অভিনয়ের প্রস্তাব নিয়ে। মহানায়িকার স্ক্রিট পছন্দ হয়। তিনি জানতে চেয়েছিলেন -”নায়ক কাকে করবি ”? উত্তরে তরুণ বাবু বলেছিলেন – ” দেখি” মহানায়িকা তখন বলেছিলেন -” তোর দাদা ছাড়া আর কেউ পারবে না”। সত্যি উত্তম কুমার চলে যাওয়ার পর সব যেন কেমন অগোছাল হয়ে গেল। তরুণ কুমারের মত অভিনেতাকে বাংলা ছবি সেরকম ভাবে আর ব্যবহার করতে পারলেন না। তাই হয়তো অনেক অভিমান বুকে নিয়ে তরুণ কুমার চলে গেলেন ২০০৩ সালে। ২৪ ফেব্রুয়ারি তাঁর জন্মদিন। তাঁর জন্মদিনে এই মহান অভিনেতাকে জানাই সমস্ত বাঙালির তরফ থেকে ভালোবাসা।

আরও পড়ুন:  Sidharth Malhotra Kiara Advani: গোপনে হাই বাজেটের নতুন ইনিংস শুরু সিড কিয়ারা

Featured article

%d bloggers like this: