33 C
Kolkata

EXCLUSIVE WORLD HEALTH DAY: কোভিড থেকে সুস্থ হওয়া মানুষদের সাবধানে থাকার বার্তা দিকের ডঃ অরিন্দম বিশ্বাস

শ্রাবণী পাল: বিধিনিষেধ উঠেছে। মাস্ক পরাও আর বাধ্যতামূলক নয়। তবে কি একে এনডেমিক বলা যেতে পারে? বিশ্ব স্বাস্থ্য দিবসে কী-খবরের সঙ্গে কথা বললেন চিকিৎসক অরিন্দম বিশ্বাস। করোনার বর্তমান পরিস্থিতি সম্পর্কে জানালেন তিনি। আনুষ্ঠানিকভাবে আমরা এনডেমিক ঘোষণা করতে পারি না। এটা সম্পূর্ণ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার হাতে। এখনও কিন্তু পরিস্থিতি সেই পর্যায়ে যায়নি। তবে ইঙ্গিত যা মিলছে, আর কয়েকমাসের মধ্যেই এনডেমিক হতে পারে।” আরও আশ্বস্ত করেছেন চিকিৎসক। করোনার বিভিন্ন প্রজাতি প্রতি মাসে আসতে পারে। কয়েকমাস অন্তরও আসতে পারে বলে জানিয়েছেন তিনি। কিন্তু তা ভয়াবহ হবে না বলেই মনে করছে চিকিৎসক মহল। চতুর্থ ঢেউয়ের সমীক্ষা মিলবে না বলে জানিয়েছেন চিকিৎসক। তিনি জানিয়েছেন, ”অঙ্ক কষে অনেকে অনুমান করছেন। কিন্তু নির্বাচনী সমীক্ষা যেমন মেলে না। মনে হয় এটাও মিলবে না। চতুর্থ তরঙ্গ এলেও তা ভয়াবহ হবে না। কয়েকমাস পর বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এনডেমিক ঘোষণা করতে পারে।”

আরও পড়ুন:  Durga Puja 2022: মণ্ডপের উদ্দেশে যাত্রা শুরু
আরও পড়ুন:  Hazra kolkata: বেহাল দশা! কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে নিস্তব্ধতার অভিযোগ খাস কলকাতায়

করোনায় প্রাণ গিয়েছে বহু মানুষের। আক্রান্ত হয়ে অনেকে সেরে উঠেছেন। কিন্তু তাঁদের হৃদযন্ত্র, ফুসফুস ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। সেইসব মানুষের লাইফস্টাইল কেমন হওয়া উচিত? ডঃ বিশ্বাস জানান, ”সুস্থ থাকার জন্য যে ওষুধপত্র চলছে, সেগুলো বন্ধ করা যাবে না। যাদের ফুসফুস ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে, তারা দূষণে থাকতে পারবে না। তবে অবস্থা আরও খারাপ হবে। আমরা সবুজায়ন দেখতে পাই না।” একইসঙ্গে রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বদের কাছেও আবেদন করেন চিকিৎসক। তিনি জানান, ”সমাজের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিত্বরা যেন এগিয়ে আসেন। সবুজায়নের আলোচনায় নিজেদের নিয়োগ করেন।” বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা অনেকদিন পর সচেতন হয়েছে। তারা বলেছেন, ‘আমাদের বিশ্ব, আমার স্বাস্থ্য’। অর্থাৎ পৃথিবীকে সুন্দর, লাবণ্যময়, প্রাঞ্জল রাখতে হবে। বিভিন্ন দেশে দূষণ বাড়ছে। এই দেশে নয়, বিদেশেও। অনেকে নিজে থেকে তা তৈরি করছে। তাদের উদ্দেশেও এই বার্তা। দূষণ কমালেই রোগ কমবে।” পরিবেশকে সুস্থ রাখতে হবে।

আরও পড়ুন:  #Mahalaya #DilipGhosh: বাংলায় সন্ত্রাস দমনের প্রতিবাদী সুর প্রার্থনা রূপে প্রকাশ্যে মহালয়ায়

রাজ্যসরকার বিধিনিষেধ তুলে নিয়েছে। সঠিক সময়ে কি নেওয়া হয়েছে এই সিদ্ধান্ত? আর মাস্ক না পরাও কি এখন উচিত? ডঃ বিশ্বাস জানান, ”বার্তাটা একটু স্পষ্ট হওয়া উচিত ছিল। মাস্ক পরা দরকার, অসুখটা চলে যায়নি। দুটো সম্পূর্ণ আলাদা বিষয়। বলা উচিত ছিল, যেখানে জনসমাগম সেখানে অবশ্যই মাস্ক পরতে হবে।” মাস্ক শুধু কোভিড আটকায় না। একথাও এইদিন জানিয়েছেন তিনি। সর্বশেষ সকলের উদ্দেশ্যে তাঁর বার্তা ছিল স্পষ্ট। এনডেমিকে পরিণত করা আমাদের হাতে। অপেক্ষা করতে হবে। আর এই রোগের সবচেয়ে বড় ওষুধ হল সচেতনতা। মানুষ সচেতন হলেই যে-কোনও রোগ নিরাময় সম্ভব।

আরও পড়ুন:  Madan Mitra: মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বললে দল ছাড়বেন মদন

Featured article

%d bloggers like this: