18 C
Kolkata

Goa Poll: গোয়ায় লড়াইটা বিজেপি বনাম কংগ্রেসই থাকছে

নিজস্ব সংবাদদাতা : গোয়া , এই ছোট্ট রাজ্যটির দখল নেওয়ার জন্য গত কয়েক মাস বিজেপি, কংগ্রেস, আপ এবং তৃণমূল কংগ্রেসের হেভিওয়েট নেতাদের অনবরত যাতায়াতের সাক্ষী থেকেছে গোয়া। গত চার মাস প্রবল ভাবে প্রচার করতে দেখা গিয়েছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের তৃণমূল কংগ্রেস এবং অরবিন্দ কেজরীওয়ালের আম আদমি পার্টির নেতাদের। কেজরীওয়াল তো এসেছেনই, দু’বার প্রচার করে গিয়েছেন মমতাও। গত বছর পশ্চিমবঙ্গে বিজেপিকে হারানোর পরে গোয়ায় অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে তৃণমূল কংগ্রেস লড়াইয়ের প্রস্তুতি নেয়।

বিরোধী রাজনীতিতেও গোয়া নিয়ে তখন আগ্রহ তৈরি হয়েছিল। ভোট-কুশলী প্রশান্ত কিশোরের শিবির সে সময়ে জানিয়েছিল, গোয়ায় যদি তৃণমূল কংগ্রেস ভাল ফলাফল করতে পারে, বিরোধী রাজনীতিতে দলের নেতৃত্ব সুপ্রতিষ্ঠিত হবে। রাজ্যে গিয়ে বিজেপির পাশাপাশি কংগ্রেসকেও সমান ভাবে আক্রমণ করেছিল তৃণমূল কংগ্রেস। পরে অবশ্য, জোট গড়ার জন্য দলের পক্ষ থেকে কংগ্রেসকে আহ্বান জানানো হয়, যা ফিরিয়ে দেয় সনিয়া গান্ধীর দল।

আরও পড়ুন:  Taj India: বিশ্বের ১ নম্বর হোটেল ব্র্যান্ড TATA -র Taj

তৃণমূলের গোয়া শিবির ঘরোয়া ভাবে জানাচ্ছে, নিজেরা এবং শরিক দল মহারাষ্ট্রবাদী গোমন্তক পার্টি মিলিয়ে মোট ৪টি আসন তারা পেতে পারে বলে তারা আশাবাদী। তবে স্থানীয় সূত্রের বক্তব্য, আঞ্চলিক দল এবং গোয়ার স্থানীয় ছোট দলগুলি এ বার ভোট প্রচারে এবং লড়াইয়ের অগ্রভাগে থাকলেও— লড়াইটা সেই গত বারের ভোটের মতো বিজেপি বনাম কংগ্রেসই থাকছে। তবে অন্য দলগুলি ভোট পরবর্তী সরকার গঠনের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নিতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে।

মাত্র ১৪.৮৫ লাখ জনসংখ্যার এই গোয়া দখলের জন্য কেন কংগ্রেস এবং বিজেপির মরিয়া চেষ্টা? প্রথমত, তার ভৌগোলিক অবস্থান। গোয়ার সীমান্তে মহারাষ্ট্র এবং কর্নাটক— এই দুই রাজ্যের সাংস্কৃতিক, অর্থনৈতিক এবং রাজনৈতিক প্রভাব রয়েছে। যা বিজেপি এবং কংগ্রেস দু’দলের কাছেই আকর্ষণীয়। এখন দেখার ১০ মার্চ ভোটবাক্স খোলার পর শেষ হাসি কে হাসে।

আরও পড়ুন:  Suvendu Adhikari: শুভেন্দুর সভার আগেই উত্তেজিত হটুগঞ্জ

Featured article

%d bloggers like this: