22 C
Kolkata

করোনা আবহে গুজরাটে বন্ধ গরবা

নিজস্ব সংবাদদাতা : করোনা পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখে বড় সিদ্ধান্ত নিলো গুজরাট সরকার। চলতি বছর গুজরাটে কোনও গরবা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা যাবে না। ছোট-মাঝারি-বড় সব ধরনের অনুষ্ঠানের জন্যই এই নির্দেশ। কারণ গরবার অনুষ্ঠানে অনেক মানুষ অংশ নেন। তাই সেখানে সংক্রমণ ছড়ানোর আশঙ্কা রয়েছে। বিজয় রূপাণি সরকারের তরফে আরও জানানো হয়েছে, নবরাত্রি উত্‍সবে পুজো করা যাবে। কিন্তু সেখানেও অনেক কাটছাঁট করা হয়েছে। যেমন প্রতিমা কেউ স্পর্শ করতে পারবেন না। প্রসাদ বিতরণ করা যাবে না। দর্শনার্থীদের মাস্ক পরে আসতে হবে। এছাড়া পুজো মণ্ডপ যাতে স্যানিটাইজ করা থাকে, সেদিকে লক্ষ্য রাখতে হবে উদ্যোক্তাদের।করোনা সংক্রমণের মাঝেই কেরলে আয়োজিত হয়েছিল ‘‌ওনাম’। তারপরই দক্ষিণের ওই রাজ্যে লাফিয়ে বাড়তে থাকে সংক্রমণের গ্রাফ। এই পরিস্থিতিতে এবার উত্‍সব আয়োজনের ঝুঁকি নিতে চাইছে না গুজরাট সরকার। নির্দেশিকায় স্পষ্ট জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, দুর্গা পুজো, দশেরা, ভাইফোঁটা সবাই যেন নিজের নিজের বাড়িতেই পালন করেন। এছাড়া কনটেইনমেন্ট জোন বাদ দিয়ে সামাজিক, শিক্ষামূলক, বিনোদন, সাংস্কৃতিক ক্রিয়াকলাপ, ধর্মীয় অনুষ্ঠানগুলিও কিছু শর্তসাপেক্ষে আয়োজন করা যাবে। তবে ওই অনুষ্ঠানে মানতে হবে কোভিড সংক্রান্ত সমস্ত নিয়মকানুন। কোনওভাবেই ২০০-রও বেশি ব্যক্তি থাকতে পারবেন না ওই অনুষ্ঠানে। তবে অনুষ্ঠান কখনই এক ঘণ্টার বেশি হতে পারবে না। এছাড়া সেখানে ছয় ফুট শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখার জন্য আলাদা ব্যবস্থা করতে হবে। অবশ্যই মার্কিংও করতে হবে। থাকতে হবে থার্মাল স্ক্যানার এবং স্যানিটাইজার ডিসপেন্সারও। অনু্ষ্ঠান চলাকালীন পানমশলা ও গুটখা খাওয়াও সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ করতে হবে। এছাড়া ওই SOP-তে আরও বলা হয়েছে, যাঁদের বয়স ৬৫ বছরের বেশি বা ১০ বছরের কম, তাঁদের এই ধরনের অনুষ্ঠানে থাকতে দেওয়া যাবে না। এছাড়া অন্তঃসত্ত্বাদেরও এই জাতীয় ইভেন্টগুলিতে অংশ না নেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে।করোনার প্রভাব পড়েছে সব অনুষ্ঠানে। মহারাষ্ট্রের গণপতি উত্‍সব থেকে শুরু করে ইদ, সবকিছুই এবার করতে হয়েছে অনেক কম আড়ম্বরে। মানতে হয়েছে একাধিক নিয়ম। সামনেই বাঙালির শ্রেষ্ঠ উত্‍সব দুর্গাপুজোকে ঘিরেও একাধিক নির্দেশিকা জারি করা হয়েছে।

আরও পড়ুন:  Satyendar Jain: 'সত্যেন্দ্রর দরবার'! প্রকাশ্যে তিহার জেলের নতুন ভিডিও

Featured article

%d bloggers like this: