33 C
Kolkata

Earthquake: ভূকম্পে কেঁপে উঠল মিজোরাম, তীব্রতা অনুভূত হল উত্তরবঙ্গেও

নিজস্ব সংবাদদাতা : মিজোরামে ভূমিকম্প, কম্পন অনুভূত হয়েছে উত্তরবঙ্গেও। কোচবিহারেও মৃদু কম্পন অনুভূত হয়েছে বলে খবর। মিজোরামে রিখটার স্কেলে কম্পনের মাত্রা ছিল ৫.৬। ন্যাশনাল সেন্টার ফর সিসমোলজির দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, ভূমিকম্পের উৎপত্তিস্থল মিজোরামের চম্পাই থেকে ৫৮ কিলোমাটির দক্ষিণ-পূর্বে। গভীরতা ভূপৃষ্ঠ থেকে ৬০ কিলোমিটার গভীরে।এছাড়াও জলপাইগুড়ি, কোচবিহার, বালুরঘাট, মালদা সহ উত্তরবঙ্গজুড়েই কম্পন অনুভূত হয়। যদিও ভূমিকম্পে এখনও পর্যন্ত হতাহত বা ক্ষয়ক্ষতির কোনও খবর পাওয়া যায়নি।

জানা গিয়েছে, এ দিন প্রথমে দুপুর ৩ টে ৪৪ মিনিটে ও পরে দুপুর ৩ টে ৫৫ মিনিটে, পরপর দু’বার কম্পন অনুভূত হয়। আচমকা মাটি দুলে উঠতেই আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। দার্জিলিংয়ের সাধারণ মানুষ ও পর্যটকরা রাস্তায় বেরিয়ে পড়েন। আচমকা এই ভূমিকম্পে আতঙ্ক ছড়ায়।মিজোরাম ছাড়াও কম্পন অনুভূত হয়েছে পাশের রাজ্য অসমে। এছাড়াও উত্তর পূর্বের বেশ কিছু রাজ্যে কম্পন বোঝা গিয়েছে বলে খবর।

আরও পড়ুন:  Terrorist: সন্ত্রাসদমনে বড় সাফল্য, উপত্যকায় নিকেশ তিন জইশ জঙ্গি
আরও পড়ুন:  ক্লাসে বকেছিলেন, বদলা নিতে শিক্ষককে গুলি করল ছাত্র

গত ৬ জানুয়ারি কম্পনের উৎসস্থল ছিল ভুটানের থিম্পুতে। তারই প্রভাব পড়েছিল এ রাজ্যের বেশ কয়েকটি জেলায়। রিখটার স্কেলে সেই কম্পনের মাত্রা ছিল ৪.৩। উল্লেখ্য, অক্টোবর মাসে ১৮ তারিখ অর্থাৎ পুজোর কিছু দিন পরেই কম্পন অনুভূত হয় দার্জিলিঙে । সিকিমেও মাটি কেঁপে ওঠে বলে জানা গিয়েছে। রিখটার স্কেলে ভূমিকম্পের তীব্রতা ছিল ৫.৪ ম্যাগনিটিউড। ভূমিকম্পের উৎপত্তিস্থল ছিল নেপাল।

ভারত ও ভুটানের সীমান্তে পেডংয়ের কাছেও সে বার কম্পন অনুভূত হয়েছিল। শিলিগুড়ি, জলপাইগুড়ি, মালদহ এবং মুর্শিদাবাদের একাধিক এলাকায় যার প্রভাব বুঝতে পারে সাধারণ মানুষ। এ ভাবে বারবার কম্পনে স্বভাবতই আতঙ্ক বাড়ছে উত্তরবঙ্গের বাসিন্দাদের মধ্যে।

Featured article

%d bloggers like this: