26 C
Kolkata

Joshimath land subsidence: জোশীমঠ নয়, এবার নতুন পথ দিয়ে যাবেন বদ্রীনাথ দর্শনে

নিজস্ব প্রতিবেদন: জোশীমঠ নিয়ে আতঙ্ক ছড়িয়েছে সকলের মনে। বর্তমানে বাবা ধাম অর্থাৎ কেদারনাথ ও বদ্রীনাথে যাওয়ার প্রবণতা বেড়েছে। যার ছেড়ে প্রশাসনের তরফ থেকে একাধিক পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে। ইতিমধ্যে বরফের চাদরের ঢেকে গেছে বাবার দরবার। যে সমস্ত পূর্ণার্থীরা চলতি বছরে বাবার দরবারে যাওয়ার উদ্দেশ্যে প্ল্যান শুরু করে দিয়েছেন তাদের জন্য সুখবর। কেদারনাথ দর্শন করতে যারা চান তারা প্রায়শই বদ্রীনাথ দর্শন করেন অনেকেই। যশী মাঠে এমন বিপর্যয়ের ফলে চলতি বারে বদ্রীনাথ দর্শন দর্শনের জন্য বিকল্প রাস্তা নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। বদ্রীনাথে যাওয়ার ‘গেটওয়ে’ জোশীমঠকে বলা হয়।

তবে এবার জোশীমঠ থেকে ৯ কিলোমিটার দূরে হেলাং বাইপাস প্রকল্পের কাজ শুরু করা হচ্ছে সেই রাস্তাই হয়তো বিকল্প পথ হতে পারে জোশীমঠের। গত বছরের সেপ্টেম্বর মাসেই প্রকল্পের কাজ শুরু করা হলেও এখনো পর্যন্ত রাস্তা তৈরির কাজ শেষ হয়নি। কিন্তু জানুয়ারি মাস থেকে জোশীমঠের বাড়ি এবং রাস্তাঘাটে ফাটল দেখা যাওয়ার ফলে তড়িঘড়ি সেই কাজ বন্ধ করে দেওয়া হয়। চলতি বছরের বদ্রীনাথ যাত্রায় বাকি আর মাস চারেক। কিন্তু তার মধ্যে বদ্রীনাথ যাত্রার বিকল্প রাস্তার কাজ শেষ হবে না বলে জানিয়েছে প্রশাসনিক কর্তারা। এমনকি এই বিষয়টি বর্ডার রোড অর্গানাইজেশন (বিআরও)-র তরফ থেকে উত্তরাখণ্ড সরকারকেও জানিয়ে দেওয়া হয়েছে।

তবে উত্তরাখণ্ড রাজ্য বিপর্যয় মোকাবিলা দপ্তরের সচিব রঞ্জিতকুমার সিনহা জানান, ‘‘বদ্রীনাথ যাত্রা যাতে সম্পূর্ণ নিরাপদ হয়, পুণ্যার্থীরা যাতে কোনও রকম সমস্যার সম্মুখীন না হন, তা আমরা নিশ্চিত করব। পুণ্যার্থীদের নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করার জন্য সব রকম চেষ্টা করা হবে। মঙ্গলবারই আমরা বিআরও-র সঙ্গে এই বিষয়ে আলোচনার জন্য বৈঠকে বসব।’’ তাহলে কি বিকল্প রাস্তার বন্দোবস্ত হচ্ছে না? চলতি বারে কি বন্ধ থাকবে বদ্রীনাথ যাত্রা? এরকম একাধিক প্রশ্ন উঠে আসছে প্রকাশ্যে।

আরও পড়ুন:  আসন্ন বাজেটে ৩৫ টি সামগ্রীর দাম বৃদ্ধির সম্ভাবনা – চাপ বাড়তে পারে মধ্যবিত্তের

ভাঙনের মুখে দেবভূমি। যেকোনও মুহূর্তেই তলিয়ে যেতে পারে গোটা জোশীমঠ। দ্রুত ধসে যাচ্ছে মাটি। ক্রমশ ফাটল ধরছে জোশীমঠের বাড়ি-হোটেলগুলিতে। ফাটল দেখা যাচ্ছে রাস্তাঘাটেও। বিগত কয়েকদিনে সেই ফাটলগুসি এতটাই চওড়া হয়েছে যে আস্ত একটা মানুষ সেই গর্তে ঢুকে যেতে পারে। বিশেষজ্ঞদের অনুমান, গত ২ জানুয়ারি জোশীমঠে কোনও ছোটখাটো বিস্ফোরণ হয়। এরপর থেকেই দ্রুতগতিতে মাটি ধসে যাচ্ছে, যার ফলে বাড়িঘরেও ফাটল ধরছে। বিগত কয়েকদিনে মাটি কমপক্ষে ২.২ ফুট বসে গিয়েছে বলে জানা গিয়েছে।ইসরোর তরফে সম্প্রতি জোশীমঠের একটি উপগ্রহচিত্র প্রকাশ করা হয়েছিল। তাতে দেখানো হয়েছিল, গত ২৭ ডিসেম্বর থেকে গত ৮ জানুয়ারির মধ্যে, মাত্র ১২ দিনে জোশীমঠের মাটি ৫.৪ সেন্টিমিটার বসে গিয়েছে। এই ছবি ঘিরে আতঙ্ক যেমন তৈরি হয়, তেমনই বিতর্কও বাড়ে। এরপরই শনিবার উত্তরাখণ্ড সরকারের তরফে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে যে বিনা অনুমতিতে ইসরো বা অন্য কোনও সরকারি প্রতিষ্ঠান জোশীমঠ সংক্রান্ত কোনও তথ্য বা ছবি প্রকাশ করতে পারবে না। রাজ্য সরকার ও জাতীয় বিপর্যয় মোকাবিলা দপ্তরের অনুমতি নিয়ে তবেই তথ্য প্রকাশ করা যাবে। রাজ্য সরকারের এই নির্দেশের পরই ইসরোর তরফে ওই স্যাটেলাইট চিত্র তুলে নেওয়া হয়।

আরও পড়ুন:  Union Budget 2023: সস্তা মোবাইল-হীরে, সোনায় মোড়া দাম জানুন বিস্তারিত

Featured article

%d bloggers like this: