21 C
Kolkata

Mathura Radha Rani temple : ইতিহাস সৃষ্টি করতে গিয়েও হল না মথুরায়

নিজস্ব প্রতিবেদন : জীবনের ৮০ টা বছর পেরিয়ে ইতিহাস সৃষ্টি করতে যাচ্ছিলেন মায়া দেবী নামে এক মহিলা। ৪০০ বছর পুরানো মথুরার রাধারাণী মন্দির। সেখানেই পুরোহিতের কাজ পেয়েছেন তিনি। কিন্তু মন্দিরের প্রথম মহিলা পুরোহিত হয়েও পুজো করতে জোর আগে পেলেন বাঁধা। তাও নিজের পরিবার থেকেই। মায়াদেবীর পৌরোহিত্যের বিরোধিতাকরে আদালতে গেলেন তাঁর পরিবারের সদস্যরা।

মথুরার দ্বিতীয় বৃহত্তম বাঁকেবিহারী মন্দিরের পর বিখ্যাত এই রাধারানী মন্দির। মথুরা থেকে ৪০ কিলোমিটার দূরে। বিগত ৪০০ বছর ধরে এখানে পুরোহিতরাই পুজো করে আসছেন। চলতি বছরের মে মাসে মন্দিরের পুরোহিত হিসেবে উঠে আসেন মায়া দেবী। এরপর থেকেই শুরু বিতর্ক। তাঁর স্বামী হরিবংশ ছিলেন এই মন্দিরের পুরোহিত। মায়া দেবী এবং তাঁর কোনও সন্তান ছিল না। যার কারণে হরিবংশের অবর্তমানে মন্দিরের পুরোহিত হিসাবে দায়িত্ব বর্তায় মায়া দেবীর উপর।

আরও পড়ুন:  Dominique Lapierre: প্রয়াত 'City of Joy'-এর লেখক ডমিনিক ল্যাপিয়ের

মায়া দেবী হলেন হরিবংশের দ্বিতীয় পক্ষের স্ত্রী। মায়াদেবীর পুরোহিত হতে বাধা এসেছে তাঁর স্বামীর প্রথম পক্ষের স্ত্রীর পরিবারের পক্ষ থেকে। আদালতে ‘প্রতারক’ বলে অভিযোগ করা হয়েছে মায়াদেবীর বিরুদ্ধে। ৬০ বছর ধরে ওই মন্দিরে স্বামীর সঙ্গে পুজো করে আসছেন তিনি। তাই সংবাদমাধ্যমের কাছে মায়ার দাবি, পুরোহিতের আসনে বসার প্রকৃতি দাবিদার তিনিই।

ঠাকুর দর্শন, প্রসাদ বিতরণ থেকে মন্দিরের তহবিল গঠন, সব কিছুতেই একা সিদ্ধান্ত নিচ্ছেন মায়া। এই বলে তাঁর পরিবারের লোকেরা মহিলা পুরোহিতের বিরুদ্ধে মন্দিরের বাইরে বিক্ষোভ দেখিয়েছেন।

Featured article

%d bloggers like this: