18 C
Kolkata

NIA determined to bring back ULFA chief to India: উলফার মাথা অভিজিৎ অসম কে হাতে পেতে মরিয়া এনআইএ

নিজস্ব প্রতিবেদন: বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠন উলফা প্রধান অভিজিৎ অসম কে? উনি কি ভারতীয় বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ নাগরিক ড. মুকুল হাজারিকা? ৭৫ বছরের চিকিৎসকের বিরুদ্ধে এই অভিযোগ এনেছে এনআইএ। তবে গ্রহণযোগ্য সাক্ষ্যপ্রমাণের অভাবে এই অভিযোগ ব্রিটেনের আদালত উড়িয়ে দিয়েছে । কিন্তু এরপরও না দমে আইনি পথে এগিয়ে যেতে চাইছে নয়াদিল্লি।

অসমের বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠন’র সভাপতি হিসেবে বহুদিন ধরেই শোনা যাচ্ছে অভিজিৎ অসমের নাম। ২০১৭ সালে এনআইএ যে চার্জশিট পেশ করেছিল সেখানে বলা হয়েছিল, ড. হাজারিকাই অভিজিৎ অসম।

সেই চার্জশিটে পরিষ্কার বলা হয়েছিল, ”অন্যান্য সমগোত্রীয় এজেন্সির কাছ থেকে পাওয়া সূত্র থেকে করা তদন্তে এটা জানা গিয়েছে ড. হাজারিকার ব্রিটিশ পাসপোর্ট রয়েছে এবং তিনি ক্লেভল্যান্ডে থাকেন। তদন্তকারী দল ড. হাজারিকা ওরফে ড. অভিজিৎ অসম, যেটি তাঁর সাংগঠনিক নাম, তাঁর সম্পর্কে সমস্ত তথ্য জোগাড় করার চেষ্টা করছে ব্রিটেনের থেকে।”

আরও পড়ুন:  Delhi Building Collapse: আচমকাই দিল্লিতে ভেঙে পড়ল বহুতল

এই দাবির সপক্ষে প্রমাণ হিসেবে একটি বক্তৃতার ফুটেজ আদালতে জমা দেওয়া হয়েছিল। যে ফুটেজে দেখা গিয়েছে ২০১৬ সালে মায়ানমারে উলফার প্রশিক্ষণ শিবিরে বিহু অনুষ্ঠানের সময় বক্তৃতা দিয়েছিলেন তিনি। ২০১৭ সালে গ্রেপ্তার হন মুকুল হাজারিকার সহকারী গগন হাজারিকা। তাঁর কাছ থেকেই এই ছবি উদ্ধার করা হয়েছিল বলে জানা গিয়েছে।

কিন্তু আদালত এনআইএ’র পেশ করা তথ্যপ্রমাণ নিয়ে সন্তুষ্ট নয়। স্বাভাবিক ভাবেই আদালতের এমন রায়ে আপাতত হতাশ সংস্থা। তবে এবার অন্য আইনি পথে ড. হাজারিকাকে প্রত্যর্পণেই যে নজর দিতে চাইছে ভারত তাও পরিষ্কার করে দিয়েছে জাতীয় তদন্তকারী সংস্থা।

এনআইএ সূত্র বলছে, গত শতাব্দীর সাতের দশকে গৌহাটি মেডিক্যাল কলেজ থেকে এমবিবিএস ডিগ্রি নিয়ে ডাক্তারি পাশ করেছিলেন ড. মুকুল হাজারিকা। পরে তিনি ব্রিটেনে চলে যান ও সেখানেই বসবাস করা শুরু করেন। এরপর ধীরে ধীরে তিনি ইউরোপের উলফা সংগঠনগুলির সঙ্গে যুক্ত হন। ধীরে ধীরে বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠনটির সঙ্গে কাজ করা শুরু করেন তিনি। তাঁকে দেশে ফেরাতে মরিয়া এনআইএ। আপাতত নতুন কী পদক্ষেপ করে ভারতীয় সংস্থা, সেটাই দেখার।

আরও পড়ুন:  Agniveer: ঐতিহাসিক! প্রথম ভারতীয় নৌসেনার নাবিক রূপে মহিলা নিয়োগ

Featured article

%d bloggers like this: