27 C
Kolkata

ত্রিপুরায় আরও কেন্দ্রীয় বাহিনী পাঠানোর সুপ্রিম নির্দেশ

নিজস্ব সংবাদদাতা : ত্রিপুরার পরিস্থিতি নিয়ে সোমবার সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয়েছিলেন তৃণমূল নেতৃত্ব। আদালত অবমাননার অভিযোগে মামলা দায়ের করা হয়। পাশাপাশি, রাজ্যে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতির অভিযোগ তুলে ভোট পিছনোর দাবি তোলা হয়। সুপ্রিম কোর্ট ভোট পিছনোর দাবি খারিজ করে দিলেও সুষ্ঠু এবং অবাধ ভোটের স্বার্থে কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েনের নির্দেশ দিয়েছিল বিচারপতি ডি ওয়াই চন্দ্রচূড় এবং বিচারপতি বিক্রম নাথের বেঞ্চ।

বৃহস্পতিবার অভিযোগকারী পক্ষের আইনজীবী গোপাল সুব্রহ্মণ্যম বলেন, ‘‘সকাল ৭টায় ভোটগ্রহণ শুরু হওয়ার পরেই একের পর এক অশান্তির ঘটনা ঘটে চলেছে। তৃণমূল এবং সিপিএম প্রার্থীর উপর হামলা হয়েছে। মাত্র সাড়ে তিন ঘণ্টার মধ্যেই ভোটের বেশ কিছু ভিডিয়ো ফুটেজ সামনে এসেছে। তাতে স্পষ্ট, ভোটারদের বাধা দেওয়া হচ্ছে। নিরাপত্তা ব্যবস্থা যথাযথ না হওয়ার কারণেই এমন ঘটছে।’’

আরও পড়ুন:  Bjp: পুরুলিয়ায় মিঠুনের সভা, পঞ্চায়েতের দামামা বাজাল বিজেপি

যদিও ত্রিপুরা সরকারের আইনজীবী মহেশ জেঠমলানী বৃহস্পতিবার সুপ্রিম কোর্টে বলেন, ‘‘ত্রিপুরায় সুষ্ঠু এবং অবাধ পুরভোট হচ্ছে। রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ভাবেই অশান্তির অভিযোগ তোলা হচ্ছে।’’রাজ্য সরকারের তরফে ভোটগ্রহণ পর্ব ‘অবাধ এবং শান্তিপূর্ণ’ হচ্ছে বলে দাবি করা হলেও শীর্ষ আদালত সেই যুক্তি মানেনি। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রককে দ্রুততার ভিত্তিতে ত্রিপুরায় আরও কেন্দ্রীয় বাহিনী পাঠানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।ত্রিপুরার শাসক দল বিজেপির বিরুদ্ধে হিংসা ছড়ানোর অভিযোগে শীর্ষ আলাদতের দ্বারস্থ হয়েছিল সিপিএম।

তাদের অভিযোগ, পুরভোটের আগে থেকেই গেরুয়া শিবির বিরোধীদের উপর ‘হামলা’ চালাচ্ছে। শুধু সিপিএম নয়, তৃণমূলের নেতা কর্মীরাও আক্রান্ত হচ্ছেন। ফলে হিংসার পরিবেশ তৈরি হয়েছে সে রাজ্যে। এরপরই সুপ্রিম কোর্ট স্বরাষ্ট্রমন্ত্রককে নির্দেশ দেয়, স্বচ্ছ, স্বাধীন ও শান্তিপূর্ণ ভোটের জন্য ত্রিপুরায় অতিরিক্ত দুই কোম্পানি আধা সামরিক বাহিনী পাঠাতে হবে। শুধু তাই নয়, পুরনির্বাচন যাতে সুষ্ঠুভাবে আয়োজিত হয়, তার জন্য কেন্দ্র ও ত্রিপুরা সরকারকে প্রয়োজনীয় সমস্ত ব্যবস্থা নিতে হবে।

আরও পড়ুন:  Crime: ভাতে পিঁপড়ে নিয়ে ঝগড়া! স্বামীর গলায় ওড়না পেঁচিয়ে মেরে ফেললেন স্ত্রী

Featured article

%d bloggers like this: