27 C
Kolkata

Ashok Gehlot: রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রী বদলের সম্ভাবনা!

নিজস্ব প্রতিবেদন: কার হাতে থাকবে কংগ্রেসের দায়িত্ব? সনিয়া গান্ধীর জায়গায় কে হবেন সভাপতি? এই জল্পনার মধ্যেই এবার কংগ্রেসের জাতীয় সভাপতি নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বী হচ্ছেন দুই প্রজন্মের নেতা অশোক গেহলট এবং শশী থারুর। দীর্ঘ ২০ বছর পর নেহেরু-গান্ধী পরিবারের বাইরে কোনও ব্যক্তি সভাপতি হবেন কংগ্রেসে। এদিকে, গেহলটের এই নতুন দায়িত্বপ্রাপ্তির সম্ভাবনা তৈরি হতেই দুশ্চিন্তার ভাঁজ পড়েছে দলীয় কর্মী-বিধায়কদের কপালে। প্রশ্ন উঠছে, নির্বাচনে লড়তে গিয়ে কি মুখ্যমন্ত্রিত্ব ছাড়বেন অশোক গেহলট। কিন্তু না, জাতীয় পদ পেলেও, রাজস্থানের রাজ্যপাট ছাড়তে নারাজ তিনি। মঙ্গলবার রাতে দলীয় কর্মীদের বৈঠকে এমনটাই আশ্বাসবাণী দিয়েছেন রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রী।

রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রী অশোক গেহলটের সঙ্গে ক্ষমতার লড়াইয়ের জেরেই উপ-মুখ্যমন্ত্রী পদ ছেড়েছিলেন সচিন পাইলট। গেহলট বনাম পাইলটের এই আকচাআকচি রাজ্যের সীমানা পার করে জাতীয় স্তরে পৌঁছেছিল। শেষ অবধি গান্ধী পরিবারের হস্তক্ষেপে বিরোধ কিছুটা সামাল দেওয়া গেলেও দুই কংগ্রেস নেতার মধ্যে ঠাণ্ডা লড়াই এখনও জারি। তবে সূত্রের খবর, কংগ্রেসের সভাপতি নির্বাচিত হলেও রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রীর পদ তিনি ছাড়বেন না।

আরও পড়ুন:  ১ অক্টোবর থেকে বদলে যাচ্ছে এই ৮ নিয়ম! কতটা চাপ বাড়বে পকেটে ?
আরও পড়ুন:  ষষ্ঠীতে সুখবর! দাম কমল LPG গ্যাস সিলিন্ডারের

আগামী ১৭ অক্টোবর কংগ্রেসের সভাপতি নির্বাচন। শনিবার শুরু মনোনয়ন পেশ। কংগ্রেস সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধী প্রথমে চেয়েছিলেন যে, শশী থারুরই নির্বাচনে প্রার্থী হন। সোমবার সোনিয়া গান্ধীর সঙ্গে থারুরের সাক্ষাৎ তাতে সিলমোহর দেয়। তবে পরে ভাবনাচিন্তায় বদল আনেন সোনিয়া। এছাড়া গান্ধী পরিবারের ঘনিষ্ঠরা চাইছেন রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রীকে প্রার্থী করতে। কিন্তু, গেহলট প্রথম দিকে রাজি ছিলেন না। কারণ তিনি জানেন, কংগ্রেস সভাপতি হলেও তাঁকে কাজ করতে হবে সোনিয়া-রাহুলদের ইশারাতেই। শেষ পর্যন্ত সোনিয়া গান্ধীর নির্দেশ তিনি ফেলতে পারেননি। রাজি হতে হয়েছে তাঁকে।

Featured article

%d bloggers like this: