23 C
Kolkata

Earthquake: ইন্দোনেশিয়ার পর কেঁপে উঠল সলোমন দীপপুঞ্জ, জারি সুনামি সতর্কতা

নিজস্ব প্রতিবেদন: ইন্দোনেশিয়ায় ভয়াবহ ভূমিকম্পে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৬২। এখনও ধ্বংসস্তূপে অনেকেই চাপা পড়ে আছে বলে আশঙ্কা। সেই রেষ কাটতে না কাটেই ফের ভূমিকম্পে কেঁপে উঠল সলোমন দ্বীপপুঞ্জ। ভারতীয় সময় অনুযায়ী, মঙ্গলবার সকাল ৭টা ৩৩ মিনিটে মালাঙ্গোর কাছে দক্ষিণ-পশ্চিমে সলোমন দ্বীপপুঞ্জের রাজধানী হোনিয়ারায় মাঝারি মানের ভূমিকম্প অনুভূত হয়। প্রায় ২০ সেকেন্ড স্থায়ী হয়েছিল কম্পন। যদিও এই কম্পনে প্রাণহানির কোনও খবর নেই। তবে সুনামি সতর্কতা জারি করা হয়েছে।

জানা গিয়েছে, মঙ্গলবার হোনিয়ারা সহ সলোমন দ্বীপপুঞ্জের বিস্তীর্ণ অঞ্চলে কম্পন অনুভূত হয়। রিখটার স্কেলে ওই কম্পনের তীব্রতা ছিল ৭.৩। ভূমিকম্পের কেন্দ্রস্থল ছিল ৯.৭৯৬ ডিগ্রী দক্ষিণ অক্ষাংশ এবং ১৫৯.৬০৫ ডিগ্রী পূর্ব দ্রাঘিমাংশের ১৩.৬ কিমি গভীরে। প্রথম কম্পনের পর পরপর আরও ৩ বার কম্পন অনুভূত হয়। ফলে ভূ-কম্পের উৎসস্থল, সলোমন উপকূল থেকে ৩০০ কিলোমিটার এলাকা পর্যন্ত সুনামি সতর্কতা জারি করা হয়েছে। এদিনের কম্পন খুব বেশিক্ষণ স্থায়ী না হলেও স্থানীয় বাসিন্দাদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়েছে। ভূমিকম্পের পর সুনামি সতর্কতা জারি হতেই প্রধানমন্ত্রীর অফিসের তরফে উপকূলবর্তী এলাকার বাসিন্দাদের অন্যত্র উঁচু স্থানে সরে যাওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন:  Volcano: ৪০ বছর পর জেগে উঠেছে বৃহত্তম আগ্নেয়গিরি, টগবগিয়ে ফুটছে লাভা, বাড়ছে আতঙ্ক

প্রসঙ্গত, সোমবার সকালে ভূমিকম্পে কেঁপে উঠেছিল ইন্দোনেশিয়ার রাজধানী জাকার্তা। রিখটার স্কেলে ওই কম্পনের তীব্রতা ছিল ৫.৬। ভূমিকম্পের উৎসস্থল ছিল পশ্চিম জাভার সিয়ানদজুর এলাকায় ভূ-পৃষ্ঠ থেকে প্রায় ১০ কিলোমিটার গভীরে। কয়েক সেকেন্ডের এই ভূমিকম্পে শতাধিক মানুষের মৃত্যু হয়েছে এবং জখম হয়েছেন কয়েকশো মানুষ। হাজারেরও বাড়ি, অফিস ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। ফলে গৃহহারা হয়েছেন কমপক্ষে ১৩০০ মানুষ। এই ভূমিকম্পে অনেক ক্ষতি হলেও সুনামি সতর্কতা জারি হয়নি।

Featured article

%d bloggers like this: