18 C
Kolkata

ইলিশের আগমনী বার্তা

ঢাকাঃ বাঙালিরা বসে থাকে কখন পাতে ইলিশ পড়বে। তা যদি পদ্মার ইলিশ হয়ে তাহলে ত আর কথাই নেই। আর পুজার সময় মেনুতে যদি ইলিশ থাকে, জিভে জল এল তো। সেই জিভে জল আনার জন্য যে রূপলী রূপসীদের কথা হচ্ছে তারা এ দেশে আসার জন্য প্রস্তুত।

২০২১-এ ১১৫ প্রতিষ্ঠানকে অনুমতি দেওয়া হয়েছিল ভারতে মোট ৪৬০০ টন রপ্তানির। তবে অনেকেই তা করেনি। তার আগের বছর অর্থাৎ ২০২০ সালের কথা মাথায় রেখে প্রথমে  ১ হাজার ৪৫০ টন এবং পরে আরও ৪০০ টন ইলিশ রপ্তানির পরিকল্পনা করা হয়েছিল। চলতি বছরেও শতাধিক বানিজ্যিক সংস্থা ইলিশ রপ্তানি করতে ইচ্ছে প্রকাশ করেছে । সুত্রানুসারে,  পুজো উপলক্ষে ভারতে এবারও পাঁচ হাজার টনের মতো ইলিশ মাছ রপ্তানির পরিকল্পনা রয়েছে বাংলাদেশের ইলিশ ব্যবসায়ীদের।

আরও পড়ুন:  Elon Musk: প্রাণ সংশয়ের আশঙ্কা ইলন মাস্কের

কড়া নজর রাখা হবে যে সকল প্রতিষ্ঠান রপ্তানির অনুমতি পাবে তাদের ওপর।ইলিশ, ইলিশের বংশবৃদ্ধি, বেড়ে ওঠা নিয়ে অনেক নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়। সেই সব নিয়মানুযায়ী কাজ হচ্ছে কিনা, তা কঠোর নজরদারিতে রাখবে বাংলাদেশ সরকার।

আগামী ১ অক্টোবর থেকে দুর্গাপুজো শুরু। সাধারণত দুর্গাপুজো উপলক্ষেই ভারতে ইলিশ রপ্তানি করা হয়। ২০১২ থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত রপ্তানি বন্ধ থাকলেও ২০১৯ থেকে দেশটিতে আবার ইলিশ রপ্তানি চালু করা হয়। ‘ভারতে গতবার রপ্তানি হয়েছিল ১ হাজার ৪০০ টন ইলিশ। তখন ইলিশ ধরায় নিষেধাজ্ঞা থাকাই ছিল রপ্তানির ক্ষেত্রে অন্যতম বাঁধা। তবে এবারে রপ্তানি বেশি হবে বলে আশা করা হয়েছে। রপ্তানির সময়সীমা বাড়ানোরও চিন্তা করা হচ্ছে।’

Featured article

%d bloggers like this: