18 C
Kolkata

ছাড়িয়ে যেতে পারে যুদ্ধ পরিস্থিতি সামাল দেবার অনুদান

নিউ ইয়র্কঃ ফেব্রুয়ারি ২০২২ থেকে রাশিয়া ইউক্রেনের উপর বিশেষ সামরিক অপারেশন শুরু করে। ইউক্রেন চেয়েছিল ন্যাটো অন্তর্ভুক্ত হতে। সেটার বিরধীতায় রাশিয়ার এই পদক্ষেপ। সোভিয়েত ইউনিয়ন থেকে বেড়িয়ে আসা ছোট্ট দেশ ইউক্রেনকে পাশ্চাত্য দেশগুলি সাহাজ্যের হাত বাড়িয়ে দেয়ে।

ইউনাইটেড কিংডম প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল ২০২৩ সালে ইউক্রেনেকে এই যুদ্ধ পরিস্থিতি সামাল দিতে ২.৩ বিলিয়ন পাউন্ড ($২.৬৩ বিলিয়ন) সাহায্য করবে। তারপর গড়িয়ে গেছে অনেক দিন। ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বদলে গেছে। বদলে গেছে সরকারও। তবে কি প্রতিশ্রুতি একই থাকবে?

সুত্র মারফত মঙ্গলবার খবর পাওয়া গেছে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী লিজ ট্রাস মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সফরের সময় কিয়েভকে যুক্তরাজ্যের অব্যাহত এবং যথেষ্ট সামরিক সহায়তার বার্তা দেবেন। বুধবারে তিনি নিউইয়র্ক সিটিতে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে (ইউএনজিএ) ভাষণ দেওয়ার কথা রয়েছে।

আরও পড়ুন:  Afganisthan : আফগানিস্তানে ফের বিস্ফোরণ, মৃত কমপক্ষে ৫

“যুক্তরাজ্য প্রতিটি পদক্ষেপে আপনার পিছনে থাকবে,” মঙ্গলবার মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে তার আগমনের আগে ট্রাস ইউক্রেনের জনগণকে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। ২০২৩ সালে ইউক্রেন যুদ্ধের জন্য, যে ২.৩ বিলিয়ন পাউন্ড যুক্তরাজ্যের সাহায্য পাবার কথা, তা তারা পাবে বা সেই অর্থ ছাড়িয়ে যেতেও পারে। আশা করা হচ্ছে যে বিশ্ব নেতাদের সামনেই এই কথাটি জানাবেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী লিজ ট্রাস। প্রসঙ্গত, ২০২২ সালে কিয়েভের কাছে লন্ডনের ২.৬৩ বিলিয়ন ডলারের প্রতিশ্রুতির ফলে ইউকে ইউক্রেনের দ্বিতীয় বৃহত্তম সামরিক দাতা হয়ে উঠেছে, ডাউনিং স্ট্রিট জানিয়েছে।

Featured article

%d bloggers like this: