28 C
Kolkata

Nepali Shepra : আন্টার্টিকায় উড়ল নেপালের পতাকা

নিজস্ব সংবাদদাতা : মনে অদ্যম জেদ আর হেরে না যাওয়ার মানসিকতা ৷ এই তিন মন্ত্রের জেরে ইগলু-স্লেজের দেশের মাটিতে নিজের দেশের পতাকা ওড়ালেন তিন যুবক ৷ চারিদিকে ধু ধু বরফ ৷ সেই বরফে ঢাকা দুর্গম পথ অতিক্রম করে এক কঠিন লড়াইয়ে জিতে দেশের মুখ উজ্জ্বল করল নেপালি তিন যুবক ৷ দুর্গম পবর্ত শৃঙ্গ জয় করা তাঁদের নেশা ৷ তাই পথ যতই দুর্গম হোক, পদে পদে যতই মৃত্যুর ভয় থাক ৷ হাল ছাড়েন নি তাঁরা ৷ কখনও আবহাওয়া প্রতিকূল হয়ে যায়, তীব্র ঠান্ডায় কখনও শরীর যোগ্য সঙ্গ দিতে চায় না ৷ তবে এই সব বাধা পেরিয়ে লক্ষ্যে পৌঁছনোর জেদ এবং আনন্দ পর্বতারোহীদের মানসিক শক্তি জোগায় ৷

আরও পড়ুন:  রাজা তৃতীয় চার্লসের নৈশভোজের আমন্ত্রণে 'না' প্রিন্স হ্যারির

আর সেই শক্তিকে ভর করেই পাহাড়ের পথে বিচরণ তিন নেপালি ভাইয়ের ৷ নেপালের বাসিন্দা চ্যাং ডাওয়া এবং মিঙ্গমা শেরপা ৷ সেই নেশার টানে ছোট ভাই তাশিকে নিয়ে সাত মহাদেশের উচ্চতম পর্বতশৃঙ্গ এবং উত্তর-দক্ষিণ মেরু জয় করতে বেরিয়ে পড়েন চ্যাং ডাওয়া এবং মিঙ্গমা ৷ এরপর দুর্গম পথ পেরিয়ে অবশেষে বরফের দেশে স্বপ্ন পূরণ ৷ প্রথম নেপালি হিসেবে দক্ষিণ মেরু জয় করেন চ্যাং, মিঙ্গমা ৷ আন্টার্টিকা থেকে ফিরে আসার পর শেরপা চ্যাংয়ের বক্তব্য, ‘ওখানে অনেক দেশের জাতীয় পতাকা দেখেছি৷ কিন্তু আমাদের দেশের পতাকাটাই ছিল না ৷ ওখানে নিজের দেশের পতাকা বরফের মাটিতে গেঁথে আসতে পেরে দারুণ লাগছে’ ৷

আরও পড়ুন:  Uorfi Javed: কি কান্ড!ফোনে নয় এবার পরনে সিম কার্ড উরফির

চ্যাং এবং মিঙ্গমার ছোট ভাইও পাহাড়ে চড়তে ওস্তাদ৷ মাত্র ১৯ বছর বয়সে তাশি লাকপা শেরপা হিমালয়ের সর্বোচ্চ চূড়া এভারেস্ট জয় করে৷ তাও কোনও সাপ্লিমেন্টারি অক্সিজেন ছাড়া৷ পর্বতারোহীদের মধ্যে সবচেয়ে কম বয়সে এভারেস্ট জয় করার রেকর্ড তাশির দখলে৷ তাঁর দুই ভাই চ্যাং এবং মিঙ্গমা বিশ্বের সাত মহাদেশের সর্বোচ্চ চূড়া জয় করে ‘গ্র্যান্ড স্ল্যাম’ খেতাব জয়ের স্বপ্ন দেখেছেন৷ ভাইদের পর্বতশৃঙ্গ জয় অভিযানে সামিল হয়েছেন তাশিও৷

আরও পড়ুন:  Madan Mitra: রাত জেগে মদন মিত্রের ঢাকের তালে কোমর দোলালেন শ্রাবন্তী

Featured article

%d bloggers like this: