25 C
Kolkata

দখল এল গেল – যুদ্ধের টানাপড়েন

কিয়েভঃ সেই ফেব্রুয়ারি মাস থেকে চলছে লড়াই। নিজের থেকে প্রায় ১০ গুণ বড় রাশিয়ার সামরিক অভি্যান আটকে রেখেছে ইউক্রেন। এযেন ডেভিড ও গলিয়াথের গল্প। প্রথম থেকেই ছোট্ট দেশটার পূর্ব দিকে অবস্থিত খার্কিভ শহরে শুরু হয় যুদ্ধ। রাশিয়া একবার দখল করার চেষ্টা করেও পারল না, পরে দখল নিল সেই শহরের।

অন্যদিকে বর্তমানে জেলেন্সকির সৈন্য পুনঃদখল করে নেয় খার্কিভ। পুতিন মানতে পারছেন না এই  ‘পরাজয়। ফলে শহরের বেসামরিক পরিকাঠামোয় আঘাত হেনেছে মস্কো, অভিযোগ কিয়েভের। অন্ধকারে ডুবে গিয়েছে খার্কিভের বড় অংশ, বিচ্ছিন্ন জলের সংযোগ। রাশিয়ার এহেন আচরণের তীব্র সমালোচনায় সরব ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট জেলেনস্কি।

ইউক্রেন সুত্র জানিয়েছে রবিবার সন্ধ্যায় খার্কিভে পরপর দুটো ক্ষেপণাস্ত্র বিস্ফোরণ শোনা যায়। একই পরিস্থিতি প্রতিবেশী প্রদেশ সুমি, ডিনিপ্রোপেট্রোভস্ক এবং পোল্টাভার। তবে ক্ষয়ক্ষতি মেরামত করে জরুরি পরিষেবা দ্রুত স্বাভাবিক করার চেষ্টা চলছে। খার্কিভের গর্ভনর ওলেগ সিনেগুবভ জানান, “প্রতিশোধ নিতে আমজনতাকে টার্গেট করছে রাশিয়া। তারা তাপবিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্রে হামলা চালিয়েছে। ফলে বিস্তীর্ণ এলাকা অন্ধকারে ডুবে গিয়েছে। পানীয় জলও মিলছে না। নিষ্ঠুর আচরণ করছে রাশিয়া। তবে এলাকাবাসীকে শান্ত থাকার আহ্বান জানিয়েছে সরকার।”

আরও পড়ুন:  Rishi Sunak: ব্রিটেনে বিদেশি পড়ুয়াদের প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা আনতে চলেছেন ঋষি সুনক

এই হামলার পর রাশিয়াকে সন্ত্রাসবাদী বলে ফের একবার আক্রমণ শানিয়েছেন জেলেনস্কি। তিনি জানিয়েছেন, রাশিয়া কোনও সামরিক ঘাঁটিতে আক্রমণ করছে না। সাধারণ মানুষের ওপর হানা দিচ্ছে রাশিয়া। বিদ্যুৎ এবং পানীয় জলের পরিষেবা থেকে বিচ্ছিন্ন করা হচ্ছে নাগরিকদের। তবে কোনও পরিস্থিতিতেই ইউক্রেন আত্মসমর্পণ করবে না বলে স্পষ্ট করে দিয়েছেন জেলেনস্কি।

Featured article

%d bloggers like this: