25 C
Kolkata

মুকুলের বালোচিস্তানে কি হল ?

ইসলামাবাদঃ সোনার কেল্লাতে ভবানন্দকে মনে পড়ে? প্রথমেই অন্য মুকুলকে তুলে নিয়ে জাবার সময় বলে তারা বালোচিস্তান থেকে আসছে। তাহলে বালোচিস্তান কি এমনই এক দেশ যেখানে কূকর্মের কোনও অন্ত নেই। এরকমই কি মনে করে সেখানকার পুলিশ প্রশাসন। তাই কি তারা মাঝ রাস্তায় মহিলাদের চুলের মুটি ধরে মারতে মারতে জেলে নিয়ে যায়ে।  

তবে কেন এইভাবে মাঝ রাস্তায় চুলের মুঠি ধরে মার বালোচ মহিলাদের। পাকিস্তানি পুলিশের এই জঘন্য কাজের বিরুদ্ধে উঠেছে নিন্দার ঝড়। সূত্রের খবর, কিছু মহিলা করাচিতে নিখোঁজ আত্মীয়দের সন্ধানে প্রতিবাদ করছিলেন। তখনই তাঁদের উপর ঝাপিয়ে পড়ে বিশাল পুলিশ বাহিনী।

রবিবার করাচি শহরের বুকে ঘটা এহেন অমানবিক ঘটনার প্রতিবাদে সরব হয়েছেন বালোচ সমাজকর্মীরা। নিজের টুইটার হ্যান্ডেলে বিখ্যাত মানবাধিকারকর্মী আশরফ বালোচ লেখেন, “এটাই ইসলামিক রিপাবলিক অফ পাকিস্তানের আসল চেহারা। এখানে নিখোঁজ আত্মীয়দের খোঁজে আসা বালোচ মহিলাদের রাস্তায় ফেলে টানা-হ্যাঁচড়া করা হয়। এটা খুবই দুর্ভাগ্যের বিষয় যে এই পাকিস্তান আবার রাষ্ট্রসংঘের সদস্য।”

আরও পড়ুন:  North Korea: বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিশালী ক্ষেপণাস্ত্রের পর আরো শক্তিশালী অস্ত্র তৈরি করতে চান কিম

উল্লেখ্য, পাকিস্তানের বৃহত্তম প্রদেশ বালোচিস্তান মুক্তি চাইছে । দীর্ঘদিন ধরেই স্বাধীনতার জন্য সশস্ত্র সংগ্রাম করছে ‘বালোচ লিবারেশন আর্মি-র মতো একাধিক সংগঠন। এই লড়াই খতম করতে অপহরণ, গুমখুন, ধর্ষণের মতো অত্যাচার চালাচ্ছে পাকিস্তানি সেনা ও আইএসআই।

প্রসঙ্গত, ১৯৪৭ সালের ১১ অগস্ট ব্রিটিশ শাসন থেকে মুক্ত হয়েছিল দেশীয় রাজ্য কালাত। কালাতের শাসক মির সুলেমান দাউদ, ১২ অগস্ট, স্বাধীনতা ঘোষণা করেছিলেন। তবে ১৯৪৮-এর ২৭ মার্চ  বালোচিস্তানের স্বাধিনতা গ্রাস করে নেয়ে পাকিস্তান। তবে বালোচরা থেমে নেই। পাক সেনার বিরুদ্ধে সশস্ত্র সংগ্রাম চালাচ্ছেন তাঁরা। গত ফেব্রুয়ারি মাসে বালোচিস্তানে নির্বিচারে গুমখুন করছে পাক সেনা বলে রাষ্ট্রসংঘে অভিযোগ জানান ‘খান অফ কালাত’অর্থাৎ বর্তমানে বালচিস্তানে যাকে প্রাচীন কালাত সাম্রায্যের রাজা বলে মান্য করা হয়ে। শুধু তাই নয়, দখলদার পাকিস্তানের হাত থেকে বালোচ  অঞ্চলের মুক্তির আরজিও করেছেন তিনি।

আরও পড়ুন:  Beijing: চিনে প্রশাসন ফেলার আর্জি জনতার, চরমে চলছে শোষণ

Featured article

%d bloggers like this: