25 C
Kolkata

দোকান বা বাড়ির সামনে লঙ্কা-লেবু ঝুলিয়ে রাখা হয় কেন জানেন…

নিজস্ব প্রতিবেদন: আমরা অনেকেই দেখেছি বাড়িতে বা কোনও দোকানের সামনে লেবু-লঙ্কা সুতো দিয়ে গেঁথে ঝুলিয়ে রাখা হয়। এমনকি, রাস্তাঘাটে বেরোলে বাস বা অন্য যানবাহনেও লেবু-লঙ্কা ঝুলিয়ে রাখতে দেখা যায়। অনেকের মতে এটি রাখলে অশুভ দৃষ্টি পড়ে না। কিন্তু, এটা শুধুই কুসংস্কার নাকি এর পেছনে অন্য কোনও রহস্য আছে? চলুন এবার জেনে নেওয়া যাক…

১) অনেকে মনে করেন, লেবু এবং লঙ্কা এমন দু’টি উপাদান, যেগুলির দিকে তাকালে সঙ্গে সঙ্গে সেগুলির স্বাদ মনে পড়ে যায়। তাতে মন সম্পূর্ণ রূপে নিজের জিভের দিকে চলে যায়। অনেকের এতে লালা নিঃসৃত হতে থাকে। এতে ঝুলিয়ে রাখা-লেবু লঙ্কার পিছনে যে ঘর রয়েছে, সেদিকে খুব মনোযোগ দিয়ে তাকাতে ভুলে যান তিনি। তাতে ঘরের ভিতরের গোপনীয়তা বজায় থাকে। তবে এটি একেবারেই বিশ্বাস। এর পিছনে বৈজ্ঞানিক কোনও ব্যাখ্যা নেই।

২) পুরাণ অনুযায়ী সমৃদ্ধি দেবী হল মা লক্ষ্মী। লক্ষীর আরেক বোন অলক্ষী। মা লক্ষ্মী সংসারে এসে ধন-দৌলত সমৃদ্ধিতে বৃদ্ধি করে তাই তাকে মিষ্টি এবং ফল জাতীয় খাবার দিয়ে পূজা করা হয়। অপরদিকে সংসার থেকে অলক্ষী কে দূরে রাখার জন্য টক ঝাল জাতীয় খাবার দেওয়া হয়। এই কারণেই অনেক বাড়ি বা দোকানের সামনে লেবু লঙ্কা ঝুলিয়ে রাখা হয়।

আরও পড়ুন:  Valentine's Day: পকেটে টান,তবুও প্রেমিকাকে দেবেন ট্রিট? মাত্র ৫০০ টাকায় ঘুরে আসুন শর্ট ট্রিপে

৩) লেবু-লঙ্কা ঝুলিয়ে রাখার বৈজ্ঞানিক কারণ হল, যখন পোকামাকড় তাড়ানোর জন্য কীটনাশক পদার্থ আবিষ্কৃত হয়নি তখন পোকামাকড়ের জন্য ব্যবহার করা হতো লেবু এবং লঙ্কা। পোকামাকড়ের হাত থেকে ঘর-বাড়িকে রক্ষা করার জন্য ঘরের মেন দরজায় লেবু এবং লঙ্কা ঝুলিয়ে রাখা হতো।

৪) যখন ট্রেইন বাস চালু হয় তখন একান্ত থেকে অন্য প্রান্ত যাওয়ার জন্য মানুষ তার পাদুটোকে ব্যবহার করত। তখনকার রাস্তাঘাটের পরিস্থিতি খুব খারাপ ছিল বেশিরভাগ রাস্তায় ছিল জঙ্গলের মধ্য দিয়ে তাই জঙ্গলের মধ্য দিয়ে হাঁটতে হাঁটতে মানুষকে অনেক সময় বিষাক্ত সাপের কামড়াতো। সাপে কামড়ালে যদি সেই সময় কাঁচালঙ্কা খাওয়া হয় তারপর কাঁচালঙ্কা খেয়ে যদি ঝাল লাগে তাহলে বুঝতে হবে সাপটি বিষধর ছিল না কিন্তু যদি এর বিপরীত প্রতিক্রিয়া হয় অর্থাত্‍ কেউ যদি না লাগে তাহলে জানতে হবে সাপটি বিষধর ছিল। এই কারণে আগেকার মানুষজন পথে-ঘাটে বেরুলে সঙ্গে লঙ্কা নিয়ে।

তবে, যাঁরা জ্যোতিষশাস্ত্রের ওপর বিশ্বাস রাখেন, তাঁরা এই লেবু-লঙ্কা ঝোলানোর প্রথাটিকে মানেন। সাধারণত লেবু-লঙ্কা ঝোলানো হয় এই কারণে যাতে ব্যবসার জায়গায় বা বাড়িতে কোনও অশুভ শক্তি প্রবেশ করতে না পারে এবং কারও খারাপ নজর না লাগে। কুনজর থেকে বাঁচতে এবং নেগেটিভ এনার্জিকে পজিটিভ এনার্জিতে পরিবর্তন করা যায় এই নিয়মের মাধ্যমে। যে সব ব্যবসায়ী ব্যবসায় উন্নতি করতে পারছেন না, ব্যবসায় ভীষণ ভাবে বাধা আসছে, কোনও না কোনও ভাবে ব্যবসায় ক্ষতি হয়ে যাচ্ছে,তাঁরা এই টোটকাটিতে অবশ্যই ফল পাবেন।

আরও পড়ুন:  Microsoft Layoffs: বেকার স্বামী,বিয়ে করা কি উচিত? সমাধান করল সোশ্যাল মিডিয়া

লেবু-লঙ্কা ঝোলানোর সঠিক নিয়ম- লেবু-লঙ্কা ঝোলানোর সময় এই বগলামুখী মন্ত্র প্রয়োগ করতে হবে। ওঁ হ্রিং বগলামুখী স্বাহা অথবা ওঁ হ্লীং বগলা মুখী স্বাহা

উপকরণ– ৭টি লঙ্কা, ৩টি পাতিলেবু, হলুদ সুতো ও কিছুটা গুঁড়ো হলুদ নিতে হবে। প্রথমে একটি লঙ্কা বগলামুখী মন্ত্র উচ্চারণ সহকারে হলুদ সুতো দিয়ে বেঁধে নিন। তারপর একটি পাতিলেবু ও তিনটি লঙ্কা, আবার একটি পাতিলেবু ও তিনটি লঙ্কা ও সবশেষে আর একটি পাতিলেবু মন্ত্র উচ্চারণ করে সুতোর মধ্যে প্রবেশ করান এবং সেই লেবু-লঙ্কার ওপরে একটু হলুদ গুঁড়ো ছিটিয়ে সদর দরজায় ঝুলিয়ে দিন। এটি ঝোলানোর সময় তিন বার মন্ত্র উচ্চারণ করতে হবে।

Featured article

%d bloggers like this: