28 C
Kolkata

দেখতে সাধারণ কাঠের মতো কিন্তু গুনাগুন অসাধারণ

নিজস্ব সংবাদদাতা: বিস্ময়কর স্বাস্থ্যগুণ। সৌন্দর্য চর্চায় সেই আদ্যিকাল থেকে সম্ভ্রান্ত মানুষ ব্যবহার করে থাকেন চন্দন কাঠ । অবাক করা ব্যাপার হচ্ছে এ গাছের ফুল কিংবা পাতায় কোনও গন্ধ নেই, সুগন্ধ শুধু কাঠে। এই কাঠ ব্যবহার করা হয় ওষুধ শিল্পে, সুগন্ধি দ্রব্য তৈরিতে এবং অ্যারোমা থেরাপিতে।

আয়ুর্বেদে বর্ণিত এমন অনেক ফল, ফুল, গাছপালা এবং অন্যান্য জিনিস রয়েছে যা মানবজীবনে খুব ইতিবাচক প্রভাব ফেলে। আয়ুর্বেদের মতে, আমরা কেবল গাছপালা থেকে প্রাপ্ত উপকরণ দিয়ে সম্পূর্ণ সুস্থ থাকতে পারি না। বরং ভয়াবহ রোগগুলিও তাদের মাধ্যমে পরাজিত হতে পারে। আয়ুর্বেদে লাল চন্দন সম্পর্কে এমনই কিছু লেখা হয়েছে। এই লাল চন্দনের কাঠের বৈজ্ঞানিক নাম টেরোকার্পাস সান্টালিনাস এল।

এটি রক্তচন্দন, হার্টউড, লাল চন্দন কাঠ, রুবি কাঠ, আগারু, অনুকম এবং লাল চন্দন বিভিন্ন নামে পরিচিত। লাল চন্দন কাঠিতে অনেকগুলি ফাইটোকেমিক্যাল রয়েছে যেমন পলিফেনলিক যৌগ, গ্লাইকোসাইডস, প্রয়োজনীয় তেল, ফ্ল্যাভোনয়েডস, ট্যানিনস এবং ফেনলিক অ্যাসিড। সামগ্রিকভাবে, লাল চন্দন একটি খুব উপকারী কাঠ, যা ব্যবহার করে ত্বকের বিভিন্ন ধরণের সংক্রমণ থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। এগুলি ছাড়াও রক্তচন্দনের আরও কিছু উপকারিতা রয়েছে যা আমরা বিস্তারিতভাবে আলোচনা করব।

• ত্বকের সমস্যা নিরাময়ে:
স্যান্ডেলউড অসাধারণ এক প্রকার অ্যান্টি-ভাইরাল এজেন্ট। ত্বকের সংক্রমণ ও চুলকানির ক্ষেত্রে এটা দারুণ কার্যকরী। এটা সফলভাবে একজিমার নিরাময় করে বলে জানা যায়। ত্বকে সম্পর্কিত অনেক ধরণের সমস্যা রয়েছে যেমন সূর্য বার্ন, পিম্পলস, ব্রণ, অকাল বয়স্ক হওয়া, ট্যানড ত্বক, তৈলাক্ত ত্বক ইত্যাদি এই সমস্ত সমস্যা নিরাময়ে লাল চন্দন দই বা লেবুর রস ব্যবহার করা হয়। লাল চন্দন প্রদাহে অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি, অ্যাসিরিঞ্জেন্ট এবং অ্যান্টি-অক্সিডেটিভ উপাদান রয়েছে যা ত্বক সম্পর্কিত সমস্যাগুলি নিরাময়ে সহায়তা করে।

• হাঁপানি প্রতিরোধ করে:
স্যান্ডেলউড অয়েল অ্যান্টিস্প্যাজম্যাটিক গুণ সম্পন্ন। এটা পেশী শিথিল করতে পারে। সেইসঙ্গে যেকোনও গুরুতর খিঁচুনি বন্ধ করার ক্ষমতাও আছে এর মধ্যে। সংবেদনশীল পেশীর সঙ্কোচন, ঠাণ্ডা লাগা ও সর্দি-কাশি থেকে হওয়া ক্রাম্প বা টান লাগার নিরাময়ে এই তেল ব্যবহারে উপকার পাওয়া যায়।

আরও পড়ুন:  মানুষেরই নতুন প্রজাতির খোঁজ মিলল ফিলিপিন্সের গুহায়
আরও পড়ুন:  Diet Food : ওজন কমানোর জন্য ব্রেকফাস্ট রেসিপি

• রক্তক্ষরণ বন্ধ রাখে:
চন্দন কাঠ রক্তক্ষরণ বন্ধ রাখে বলে আফটার শেভ ও ফেসিয়াল টোনারের প্রাথমিক উপকরণ হিসেবে এটি ব্যবহৃত হয়। স্যান্ডেলউড বা চন্দনের গুঁড়ার সাথে সামান্য কর্পূর ও জল মিশিয়ে সেই মিশ্রন পোড়া, ফুসকুড়ি এবং অ্যালার্জিতে লাগালে উপকার পাওয়া যায়।

• স্মৃতিশক্তি বাড়ায়:
এই সুগন্ধি কাঠ মস্তিষ্ককে শান্ত রাখে এবং অকারণ মানসিক চাপ ও দুশ্চিন্তা থেকে দূরে রাখে। চন্দন স্মৃতিশক্তি বাড়ায় এবং মনোযোগের ক্ষমতা বৃদ্ধি করে।

• মূত্রনালীর সংক্রমণ:
চন্দনের অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটারি বৈশিষ্ট্য আছে। এই উপাদান রেচনতন্ত্র বা ইউরিনারি সিস্টেমের জ্বালাভাবের উপশম করতে সাহায্য করে, আরাম দেয় এবং সহজেই প্রস্রাব বেরিয়ে যাবার পথ করে দেয়। এছাড়াও ক্ষতিকারক টক্সিন সহজেই বের করে দিয়ে মূত্রনালীর সংক্রমণ নিরাময়ে সাহায্য করে।

আরও পড়ুন:  Alipur Zoo: জন্মদিনের অনেক শুভেচ্ছা আলিপুর চিড়িয়াখানা
আরও পড়ুন:  Aparajita Flower: মাত্র দুটি উপায়ে মিলবে আপনার বাস্তু সংক্রান্ত সমস্ত সমস্যার সমাধান....

• জীবাণুনাশক:
চন্দন কাঠের তেল জীবাণুনাশক হিসেবে দারুণ কার্যকর। এই তেলের স্বতন্ত্র সুগন্ধ কীটপতঙ্গকে দূরে সরিয়ে রাখার জন্য এই তেলকে ইনসেক্ট রেপেলেন্ট এবং কীটনাশক হিসেবে ব্যবহার করা হয়।

Featured article

%d bloggers like this: