33 C
Kolkata

MUNICIPAL ELECTION: ‘অবাধ-শান্তিপূর্ণ’, নাকি ‘হিংসা’ আর ‘লজ্জা’র নির্বাচন হল?

শ্রাবণী পাল: রবিবার বাংলা পরিণত হয়েছিল ‘রণক্ষেত্র’-এ। বিরোধীরা এমনটা মনে করলেও ‘শান্তিপূর্ণ’ নির্বাচনই হয়েছে বলে মনে করছে শাসকদল। সকাল ৭ টা থেকে ভোট শুরু হওয়ার কথা ছিল কিন্তু ভোটের আগেই রাজপুর-সোনারপুর পুরসভার ১৭ নম্বর ওয়ার্ডে ব্যাপক উত্তেজনা ছড়ায়। রাজপুর বিদ্য়ানিধি স্কুলে ২০০ নম্বর বুথে দেখা গিয়েছে এই ছবি। তৃণমূলের বিরুদ্ধে অভিযোগ ওঠে বুথের ভিতর। কংগ্রেসের দাবি বুথের ভিতর এক এজেন্টকে মারধরের, সিপিএমের দাবি, তাদের পোলিং এজেন্টকে বসতে দেওয়া হয়নি। তৃণমূলের বিরুদ্ধে অভিযোগ ঘিরে কার্যত রণক্ষেত্রের চেহারা নিয়েছে ১৭ নম্বর ওয়ার্ড। একাধিক ওয়ার্ডে ছাপ্পার অভিযোগও উঠেছে। তবে মন্ত্রী বিপ্লব মিত্র, অনুব্রত মণ্ডলের মতো কিছু নেতৃত্ব মনে করছে, মানুষ অবাধে গণতান্ত্রিক অধিকার প্রয়োগ করতে পেরেছে। কোথাও কোনও সমস্যাই হয়নি। আবার অর্জুন সিংয়ের মতো বিরোধী সাংসদদের অভিযোগ ‘ভোট’ই দিতে পারিনি। যদিও শাসক দলের পাল্টা অভিযোগ, ‘অর্জুন সিং বিক্ষোভকারীদের চড় মেরেছেন’।

প্রতাপগড়ের মতো এলাকায় তৃণমূলের বিরুদ্ধে বুথ দখলের অভিযোগ উঠেছে। মুর্শিদাবাদের কিছু এলাকায় বোমাবাজি, গোলাগুলির অভিযোগ ওঠে। যদিও এতে ‘পাত্তা’ দিতে চায়নি তৃণমূল। তাদের মতে, ‘কিছু করতে পারবে না ভেবেই, এসব বাহানা দিচ্ছে বিরোধীরা’। সাতসকালে বুথ এজেন্টদের বুথে ঢুকতে দেওয়া হচ্ছে না, এমন কথা শোনা যায় কংগ্রেস সাংসদ অধীর রঞ্জন চৌধুরীর গলাতেও। যদিও অনুব্রত মণ্ডলের মতে, ”এমন শান্তিপূর্ণ ভোট আগে কখনও হয়নি।” একই সঙ্গে তিনি নিশ্চিত, ”জনতা শাসকদলের পক্ষেই রায় দেবে।” বিরোধীদের মতে ‘হিংসাপূর্ণ’ এই নির্বাচনেও বেলা ৩টে পর্যন্ত গোটা বাংলায় ভোট পড়েছে ৬৫.০২ শতাংশ। এদিকে কিছু সংবাদমাধ্যমের সাংবাদিকদের উপর দুষ্কৃতিদের আক্রমণের খবরও সামনে এসেছে। যদিও কোনও রাজনৈতিক দলকে উল্লেখ করে কোনও অভিযোগ করা হয়নি। তবুও তৃণমূল নেতা কুণাল ঘোষের মন্তব্য, ”নাটক করে দৃষ্টি ঘোরানো হচ্ছে। বুথ দেখলে বোঝা যাবে মোট বুথের শতাংশের হিসাবে ০.৩ শতাংশে গণ্ডগোল হয়েছে। সাংবাদিকদের সঙ্গে আমাদের দলের কোনও সম্পর্ক নেই। তাঁদের ওপর আক্রমণ আমরা সমর্থন করিনা। ঘটনায় তৃণমূলের কেউ জড়িত থাকলে, দল খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নেবে।” এককথায়, সাংবাদিকদের ওপর আক্রমণের ঘটনাকে অনভিপ্রেত বলে মনে করেছেন কুণাল। সব মিলিয়ে এবারের নির্বাচন একপক্ষের কাছে যেমন ‘অবাধে শান্তিপূর্ণভাবে সম্পন্ন হয়েছে’, তেমনই তার বিরোধীদের কাছে এমন নির্বাচন ‘হিংসাত্মক পুরভোট গণতন্ত্রের লজ্জা’।

Featured article