18 C
Kolkata

রহস্যময় হাট্টিমাটিম

নিজস্ব প্রতিবেদনঃ প্রত্যেকেরই কবিতা পড়তে ভালো লাগতো তার মধ্যে কিছু উল্লেখযোগ্য কবিতা রয়েছে সেগুলি হল আতা গাছে তোতা পাখি, বাবুরাম সাপুড়ে, তাতির বাড়ি ব্যাঙের বাসা, হাট্টিমাটিম টিম।

হাট্টিমাটিম টিম ছড়া টি আমরা প্রত্যেকেই ৪ লাইনে জানি। রোকনুজ্জামান এই কবিতাটি লিখেছিলেন ৫২ লাইনের ১৯৬২ সালে ১৯৬৮ সালে এটি একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার পায়। বাংলাদেশ দাদাভাই নামে পরিচিত ছিলেন রোকনুজ্জামান খান তার এই ৫২ লাইনের ছড়া টি কে কেন চার লাইনে নিয়ে আসা হয় । এই নিয়ে নানান লোকে নানান মত প্রকাশ করে তবে আসল কারণটা হলো শিশুরা ৫২ লাইনের ছড়া টি একেবারে মুখস্ত করে নিতে পারবে না তাই তাদের সুবিধার্থে শুধুই ৫২ লাইনের কবিতাটিকে চার লাইনে নিয়ে আসা হয়।

52 লাইনের কবিতাটি নিম্নোক্ত দাওয়া হল

টাট্টুকে আজ আনতে দিলাম
বাজার থেকে সিম
মনের ভুলে আনলো কিনে
মস্ত একটা ডিম
বলল এটা ফ্রি পেয়েছি
নেয়নি কোন দাম
ফুটলে বাঘের ছানা বেরোবে
করবে ঘরের কাম
সন্ধ্যা সকাল যখন দেখো
দিচ্ছে ডিমে তা
ডিম ফুটে আজ বের হয়েছে
লম্বা দুটো পা
উল্টে দিয়ে পানির কলস
উল্টে দিয়ে হাড়ি
আজব দু পা বেড়ায় ঘুরে
গায়ের যত বাড়ি
সপ্তা বাদে ডিমের থেকে
বের হলো দুই হাত
কুপি জ্বালায় দিনের শেষে
যখন নামে রাত
উঠোন ঝাড়ে বাসন মাজে
করে ঘরের কাম
দেখলে সবাই রেগে মরে
বলে এবার থাম
চোখ না থাকায় এই দুর্গতি
ডিমের কি দোষ ভাই
উঠোন ঝেড়ে ময়লা ধুলায়
ঘর করে বোঝাই
বাসন মেজে সামনে রাখে
ময়লা ফেলার ভারে
কান্ড দেখে টাট্টু বাড়ি
নিজের মাথায় মারে
সিংয়ের দেখা মিলল ডিমে
মাসখানেকের মাঝে
কেমন তর ডিম তা নিয়ে
বসল বিচার সাঁঝে
গায়ের মোড়ল পান চিবিয়ে
বলল বিচার শেষ
এই গায়ের ডিম আর রবে না
তবেই হবে বেশ
মনের দুঃখে ঘর ছেড়ে ডিম
চলল একা হেঁটে
গাছের সাথে ধাক্কা খেয়ে
ডিম গেল ফেটে
গায়ের মানুষ একসাথে সব
সবাই ভয়ে হিম
ডিম ফেটে যা বের হলো তা
হাট্টিমাটিম টিম
হাট্টিমাটিম টিম
তারা মাঠে পাড়ে ডিম
তাদের খাড়া দুটো শিং
তারা হাট্টিমাটিম টিম

আরও পড়ুন:  Health : দাঁত হলদে হয়ে যাওয়ার সমস্যা থেকে মুক্তি পান সহজে

এখানে হাট্টিমাটিম টিম বলতে দুটো অতিথি হাস কে বোঝানো হয়েছে যাদেরকে নিয়ে গ্রামে চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে ওর সকলেই এই অদ্ভুত মানুষ রূপে হাত দুটোকে দেখার জন্য সারা গ্রামে হইচই ফেলে দেয়।

Featured article

%d bloggers like this: