35 C
Kolkata

Bride torture : বধূ নির্যাতনের অভিযোগ তৃণমূল বিধায়ক সহ তাঁর পরিবারের বিরুদ্ধে

নিজস্ব প্রতিবেদন :- দীর্ঘদিন ধরে শারীরিক এবং মানসিক অত্যাচারের শিকার হতে হয়েছিল এক গৃহবধূকে। অথচ একাধিকবার পুলিশের দ্বারস্থ হলেও তাঁর অভিযোগ গ্রহণ করছিল না পুলিশ কারণ তার শশুর মশাই প্রভাবশালী ব্যক্তি। অবশেষে কোন উপায় দেখতে না পেয়ে জলপাইগুড়ি সিজেএম আদালতের দ্বারস্থ হলেন রাজগঞ্জের তৃণমূল বিধায়ক খগেশ্বর রায়ের পুত্রবধূ পিঙ্কি রায়।তাঁর আবেদনের ভিত্তিতে বধূ নির্যাতনের মামলা গ্রহণ করতে পুলিশকে নির্দেশ দিল আদালত।১২ জুলাই আদালতে জানাতে সমগ্র ঘটনার হাল-হকিকত জানাতে হবে পুলিশকে এমনটাই নির্দেশ দিয়েছে আদালত। আদালতের নির্দেশ পাওয়ার পরই নড়েচড়ে বসেছে পুলিশ প্রশাসন।

২০১৯ সালে রাজগঞ্জের বিধায়ক খগেশ্বর রায়ের ছেলে দিবাকর রায়ের সঙ্গে বিয়ে হয় ময়নাগুড়ি বাসিন্দা পিঙ্কি রায়ের। বিয়ের পর থেকেই তিনি তাঁর স্বামী ও শাশুড়ির দ্বারা শারিরীক ও মানসিক ভাবে নির্যাতনের শিকার বলে অভিযোগ। একইসঙ্গে তাঁর আরও অভিযোগ, এই বিষয়গুলি খগেশ্বর রায় জানতেন। তবুও তিনি এর কোনও বিহিত করেননি কিংবা পুত্রবধূর পাশে দাঁড়াননি। উলটে তিনি দিনের পর দিন নিশ্চুপ থেকে ছেলে ও স্ত্রীর পাশেই দাঁড়িয়েছেন বলে অভিযোগ পিঙ্কি রায়ের।

আরও পড়ুন:  Arjun Singh TMC: আসল 'কালারফুল বয়' তো অর্জুনই
আরও পড়ুন:  Nawazuddin Siddiqui: ফ্রেঞ্চ ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে সম্মানিত নওয়াজউদ্দিন সিদ্দিকি

আদালতের নির্দেশে খুশি তৃণমূল বিধায়কের পুত্রবধূ। পিঙ্কি বলেন, “আমার শাশুড়ি আমায় গালিগালাজ করতেন। স্বামী মারধর করতেন। শ্বশুরমশাই সব জেনেও চুপ করে থাকতেন। এমনকী, আমি যখন থানায় অভিযোগ জানাতে যাই, তখন আমার নামে মিথ্যে খবর ছড়িয়েছিলেন। বলেছিলেন, আমি নাকি তাঁর কাছ থেকে টাকা চেয়েছি।”

যদিও তাঁর বিরুদ্ধে ওঠা যাবতীয় অভিযোগ অস্বীকার করেছেন খগেশ্বর রায়।তিনি বলেন,”পঞ্চায়েত নির্বাচন আসছে। আর যেহেতু তিনি বিধায়কের পাশাপাশি জেলা তৃণমূলের চেয়ারম্যান তাই তাঁর ভাবমূর্তি নষ্ট করতে উদ্যোগী হয়েছে বিরোধীরা। তাদেরই কেউ কেউ আবার নতুন করে পুত্রবধূকে প্ররোচনা দিচ্ছে।” আদালতের নির্দেশ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, “আইন আইনের পথে চলবে।”

Featured article