25 C
Kolkata

সমবায় সমিতির নির্বাচন ঘিরে উত্তেজনা, বিজেপি-তৃণমূল সংঘর্ষ, পরিস্থিতি সামাল দিতে লাঠিচার্জ পুলিশের

নিজস্ব প্রতিবেদন: পঞ্চায়েত ভোট যতই এগিয়ে আসছে, ততই রাজ্যে ঘোরাল হচ্ছে পরিস্থিতি। চড়ছে রাজনৈতিক হুমকি-হুঁশিয়ারি। গতকাল কাঁথিতে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের সভা ছিল। তার আগের রাতে কেঁপে উঠেছিল ভূপতিনগর। বিস্ফোরণে তৃণমূল কংগ্রেসের চারজন কর্মীর মৃত্যু হয়েছে বলে খবর। এবার সমবায় সমিতির নির্বাচন ঘিরে ব্যাপক উত্তেজনা তমলুকে। সকাল থেকে দফায় দফায় সংঘর্ষের ঘটনা ঘটল তৃণমূল–বিজেপির মধ্যে। শাসকদলের বিরুদ্ধে বুথ ভাঙার অভিযোগ তোলে বিজেপি। পাল্টা বিজেপির বিরুদ্ধে হামলার অভিযোগ তৃণমূলের। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশকে লাঠিচার্জ করতে হয়েছে।

রবিবার তমলুকের শহিদ মাতঙ্গিনী ব্লকের খারুই গঠরাতে সমবায় সমিতির নির্বাচন ছিল। এই সমবায়ে মোট আসন ৪৩টি। ৪৩টি আসনেই প্রার্থী দিয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস। নন্দকুমার, মহিষাদলের পর এই সমবায়েও রাম-বাম জোটের খবর সামনে এসেছিল। তৃণমূলকে হারাতে জোট বেঁধেছিল বাম-বিজেপি। তবে, সিপিএম তাঁদের সংগঠনের গঠনতন্ত্রের ১৯১৩ ধারা অনুযায়ী জোটে সামিল দলীয় সদস্যদের বহিষ্কার করা হবে বলে জানিয়ে দেয়। এরপরই আজ সমবায় সমিতির নির্বাচনকে কেন্দ্র করেই এদিন দফায় দফায় উত্তেজনা ছড়াল এলাকায়। সকাল থেকে ভোটগ্রহণ শুরু হতেই বাড়তে থাকে উত্তেজনা। দু’‌পক্ষের মধ্যে এই ভোট দেওয়াকে কেন্দ্র করে ব্যাপক হাতাহাতি শুরু হয়। তখন ছুটে আসে পুলিশ। তবে এই সংঘর্ষের জেরে দুই শিবিরের এখনও পর্যন্ত বিজেপির ১ জন কর্মী আহত হয়েছেন।

আরও পড়ুন:  জাতীয় খাদ্য সুরক্ষা প্রকল্পে ৯০ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ কমাল কেন্দ্রের সরকার

এই ঘটনা নিয়ে বিজেপির তমলুক সাংগঠনিক জেলার সম্পাদক বামদেব গুছাইত বলেন, ওরা আমাদের মারধর করছে। আমাদের ভোটারদের ভয় দেখাচ্ছে। স্লিপ কেড়ে নেওয়া হয়েছে। বাইরের লোকজন এনে গণ্ডগোল করছে।’’ পাল্টা শহিদ মাতঙ্গিনী পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি তৃণমূল কংগ্রেস নেতা রাজেশ হাজরা বলেন, বিজেপি ময়নার বাকচা থেকে লোক এনেছে। তাদের মুখ এলাকার কেউ চেনে না। কিন্তু আমরা স্থানীয় লোকজনকে সঙ্গে নিয়েই ভোট পরিচালনা করেছি। তাই ওদের কেউ যদি ভোট না দিতে পারে আমাকে বলুক। আমি ব্যবস্থা করে দিচ্ছি।’

Featured article

%d bloggers like this: