18 C
Kolkata

Cattle Smuggling: অনুব্রতকে হেফাজতে নিতে চায় ED!

নিজস্ব প্রতিবেদন: গরু পাচার মামলায় অনুব্রত মণ্ডলকে গ্রেফতার করেছে সিবিআই। বুধবারই তাঁকে আদালতে পেশ করা হচ্ছে। অন্যদিকে, এই মামলায় আগেই এফআইআর করেছিল ইডি বা এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট। এবার অনুব্রতকেও হেফাজতে নিতে চাইতে পারে সেই কেন্দ্রীয় সংস্থা। জানা যাচ্ছে, দিল্লিতে ইডি-র সদর দফতরের তরফ থেকে প্রতিনিয়ত যোগাযোগ করা হচ্ছে সিবিআইয়ের সঙ্গে। এই মামলায় ইডি-র তৎপরতা বাড়তে পারে বলে জল্পনা বাড়ছে।

ইডি মূলত আর্থিক লেনদেন সংক্রান্ত মামলার তদন্ত করে থাকে। তাই অনুব্রতর ক্ষেত্রে আর্থিক লেনদেন সংক্রান্ত কোনও তথ্য প্রমাণ সিবিআই-এর হাতে এসেছে কি না, তা ইডি-র তরফে জানতে চাওয়া হয়েছে। ২০২০ সালে দিল্লিতে গরু পাচার সংক্রান্ত মামলা রুজু করেছিল ইডি। তাই ওই সংস্থা অনুব্রতকে নিজেদের হেফাজতে নিতে চায়। নিয়ম অনুযায়ী, যদি ইডি হেফাজতে নিতে চায়, সে ক্ষেত্রে প্রথমে সিবিআই আদালতের বিচারককে তা জানাতে হবে। যেহেতু দিল্লির মামলা, তাই সেখানকার ইডি আদালতে অনুমতি নিতে হবে ও অনুমোদন মিললে, সেই সংক্রান্ত নথি সিবিআই আদালতে জমা দিতে হবে। এরপর অনুব্রতকে গ্রেফতার দেখিয়ে দিল্লি নিয়ে যাওয়া যেতে পারে।

আরও পড়ুন:  Local Trains Cancelled: ডিসেম্বরে বাতিল একগুচ্ছ ট্রেন

সম্প্রতি সিবিআই ও ইডির জালে জড়িয়েছেন রাজ্যের দুই হেভিওয়েট নেতা। পার্থ চট্টোপাধ্যায় এবং অনুব্রত মণ্ডলের গ্রেপ্তারিতে অস্বস্তিতে পড়েছে রাজ্যের শাসকদল। এই আবহে কয়েকদিন আগেই বিজেপি-র সর্বভারতীয় সহ-সভাপতি দিলীপ ঘোষ নিরপেক্ষতার প্রশ্নে কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থার তুলনায় এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরকে এগিয়ে রেখে নতুন করে বিতর্ক তৈরি করেছেন। বলেছিলেন, ‘আপনারা জানেন, গত কয়েকমাস ধরে এখানে সিবিআই এনকোয়ারি চলছিল। কিন্তু কোনও এফেক্ট হচ্ছিল না। ডকুমেন্টস আসছিল না। ধরা পড়ছিল না। কারণ কী? তার মধ্যে সর্ষের মধ্যে ভূত ছিল। আমিও শুনেছি, খবর আছে। সবার একটা পেট আছে। সবাই বিক্রি হয়। তার দাম থাকে। কেউ লক্ষে, কেউ কোটিতে, কেউ শ’কোটিতে। সেইভাবে বিক্রি হচ্ছিল। সেটা সরকার বুঝতে পেরেছে। আমি যতদূর শুনেছি। কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রীর বিশেষ প্রয়াসে ইডি এসেছে। তারপর কাজ শুরু হয়েছে।’

আরও পড়ুন:  Kolkata Blast: চলন্ত ট্রেন থেকে বস্তিতে বোমা ছোঁড়ার অভিযোগ

প্রসঙ্গত, গত ১১ই অগাস্ট অনুব্রতকে তাঁর বাড়ি থেকে গ্রেপ্তার করে সিবিআই। তারপর তাঁকে নিয়ে যাওয়া হয় আসানসোলের বিশেষ আরাতে তাঁকে নিয়ে আসা হয় নিজাম প্যালেসে। এর আগে সিবিআই তাঁকে অনেকবারই ডেকে পাঠিয়েছে, কিন্তু প্রায় ৯ বার এড়িয়ে গেলেও এবার যেতেই হয়েছে তাঁকে। অন্যদিকে, বুধবারই শেষ হচ্ছে গরু পাচার মামলায় অনুব্রতক সিবিআই হেফাজতের মেয়াদ। ফের আসানসোলের বিশেষ সিবিআই আদালতে পেশ করার জন্য অনুব্রত মণ্ডলকে নিজাম প্যালেস থেকে নিয়ে আসানসোলের উদ্দেশে রওনা দিয়েছেন সিবিআই আধিকারিকরা। আসানসোল সিবিআই বিচারক রাজেশ চক্রবর্তীকে হুমকি চিঠি দেওয়া নিয়ে শোরগোলের মধ্যেই আজ অনুব্রতকে পেশ করা হবে আদালতে।

Featured article

%d bloggers like this: