35 C
Kolkata

KUNAL GHOSH ACCUSED: ‘আত্মহত্যা সঠিক সিদ্ধান্ত নয়’, দোষী সাব্যস্ত হলেও শাস্তি হল না কুণালের

নিজস্ব প্রতিবেদন: বছর আটেক আগের মামলায় দোষী সাব্যস্ত হলেন কুণাল ঘোষ। যদিও তাঁর সামাজিক সম্মানের কথা ভেবে তাঁকে শাস্তি দেওয়া হচ্ছে না। সল্টলেকে সাংসদ-বিধায়কদের মামলার জন্য নির্দিষ্ট আদালতে দীর্ঘ দিন ধরেই কুণালের আত্মহত্যার চেষ্টা মামলার শুনানি চলছে। ২০১৪ সালের ১৩ নভেম্বর প্রেসিডেন্সি জেলে থাকার সময় আত্মহত্যার চেষ্টার অভিযোগ উঠেছিল কুণাল ঘোষের বিরুদ্ধে। বেআইনি অর্থ লগ্নি সংস্থা সারদার আর্থিক তছরুপে অভিযুক্ত হয়ে সাজা কাটছিলেন তিনি। ওইদিন জেলে অসুস্থ হয়ে পড়লে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয় তাঁকে। পরীক্ষায় কুণালের পেটে প্রচুর ঘুমের ওষুধ পাওয়া যায়। এরপরই (হেস্টিংস থানার) পুলিস তাঁর বিরুদ্ধে আত্মহত্যার চেষ্টার অভিযোগ দায়ের করে। চারপতি মনোজ্যোতি ভট্টাচার্য কুণালকে শুরকবার দোষী সাব্যস্ত করেন। নির্দেশে তিনি বলেন, ”কুণালের আত্মহত্যা করার সিদ্ধান্ত ঠিক ছিল না। কারণ আত্মহত্যা কখনওই কোনও সমস্যার সমাধান হতে পারে না। সামাজিক সম্মানের কথা ভেবে তাঁকে শাস্তি দেওয়া হচ্ছে না।” কুণালের বিরুদ্ধে মামলাটি ছিল ৩০৯ ধারায়। এই মামলায় দোষী সাব্যস্ত হলে জরিমানা সহ দু’বছরের কারাদণ্ড হতে পারে। তবে কুণালকে সেই সাজা দেওয়া হয়নি।

২০১৪ সালের ১৩ নভেম্বর  অসুস্থ কুণাল

ওয়াকিবহাল মহলের মতে, সময় এবং পরিস্থিতির মধ্যে তফাৎ রয়েছে। সেই সময় কুণাল ঘোষ তৃণমূল সাংসদ থাকলেও দলেরই কট্ট্র বিরোধী ছিলেন। সারদা কাণ্ডে জড়িয়ে পুলিসকে একাধিকবার বয়ানে তৃণমূলের উচ্চপদস্থ নেতার নামও বলেছেন। এমনকী তাঁদের গ্রেপ্তারের কথাও তখন শোনা গিয়েছে তাঁর মুখ থেকে। সেই কুণালই এখন রাজ্য কমিটির অন্যতম সাধারণ সম্পাদক। যে-কোনও বিষয়ে তৃণমূলের হয়ে সবার আগে কথা বলেন তিনিই। আট বছর আগের এই মামলা ছিল দল বনাম তাঁর। সচেতন মহলের একাংশ বলছেন, এই রায় জানা ছিল। দলের সঙ্গে বর্তমানে এই সম্পর্কের পর আর সাজা পাবেন একথা ভাবা যায়! জেলের রক্ষী থেকে কয়েদি প্রায় অনেকের সাক্ষ্য নেওয়া হয়েছে। কিন্তু কেউই মানতে নারাজ কুণাল ঘুমের ওষুধ খেয়েছিলেন। তাঁদের দাবি, প্রয়োজনের বেশি ওষুধ রয়েছে কি না তার খোঁজ নিয়মিত নেওয়া হত। এমনও জানিয়েছেন যে, রাতে একটি মাত্র ঘুমের ওষুধ খেতেন কুণাল। আর সেই ওষুধও কুণালের কাছে মজুত থাকত না। জেলকর্মীরাই তা এনে দিতেন। ফলে এত বেশি সংখ্যক ওষুধ কুণাল কীভাবে পেলেন, তা নিয়ে জলঘোলা হলেও হতে পারে।

আরও পড়ুন:  Arjun Sing : অর্জুনকে দলে ফেরানো তৃণমূলের মাস্টারস্ট্রোক

Featured article