33 C
Kolkata

Anis Death Contro : ২ পুলিশকর্মী গ্রেফতারের পরও তদন্তে ভরসা রাখতে পারছেন না আনিসের পরিবার

নিজস্ব সংবাদদাতা : গত শুক্রবার মধ্য রাতে ছাত্রনেতা আনিস খানের মৃত্যুর পর থেকে তোলপাড় শুরু হয়েছে। বুধবার ওই ঘটনায় আমতা থানার হোমগার্ড কাশীনাথ বেরা এবং সিভিক ভলান্টিয়ার প্রীতম ভট্টাচার্যকে গ্রেফতার করা হয়েছে। প্রথমে সাংবাদিক বৈঠকে নাম না করে এ কথা জানিয়ে দেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। পরে এ নিয়ে তথ্য দেন রাজ্য পুলিশের ডিজি মনোজ মালব্যও। তবে এই পদক্ষেপের পরেও সিবিআই তদন্তের দাবিতেই অনড় আনিসের পরিবার। যাঁরা অপরাধী তাঁরাই যে গ্রেফতার হয়েছেন তা নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করেছেন আনিসের দাদা সাব্বির খান।

সাব্বিরের কথায়, ‘‘আমরা খুশি। গ্রেফতার হয়েছে শুনে ভাল লেগেছে। দিদি কাজ করছেন শুনে ভাল লেগেছে। কিন্তু ওরা কি অপরাধীদের গ্রেফতার করেছে? না কি সন্দেহজনক হিসাবে গ্রেফতার করেছে? ওরা যে দোষী তা প্রমাণিত হয়েছে? সঠিক লোক গ্রেফতার হয়েছে এটা বিশ্বাস হচ্ছে না। আমরা সিবিআই-ই চাই।’’ হাওড়ার ছাত্রনেতা আনিস খান খুনের ঘটনার তদন্তে ইতিমধ্যেই উচ্চ পর্যায়ের সিট গঠনের নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

তখনি আনিসের পরিবারের সদস্যরা জানিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রীর এই নির্দেশের পরেও তাঁরা তদন্তে আস্থা রাখতে পারছেন না । সিবিআই তদন্তের দাবিতেই অনড় থাকার কথা জানিয়ে দেন সেইসময়ে । তাদের বক্তব্য, ‘পুলিশই যেখানে খুনের সঙ্গে জড়িয়ে আছে সেখানে পুলিশ দিয়ে তদন্ত করালে সত্যি ঘটনা কখনই বেরিয়ে আসবে না। তাই অবিলম্বে এই ঘটনায় সিবিআই তদন্ত করতে হবে।’ আনিসের দাদা সাবির খান বলেছিলেন, ‘আমাদের দিদির উপরে আস্থা রয়েছে। কিন্তু, পুলিশের উপরে আস্থা নেই।

আরও পড়ুন:  Accident: সাতসকালে ভয়াবহ দুর্ঘটনা, নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে সোজা পুকুরে যাত্রীবোঝাই বাস
আরও পড়ুন:  Accident: সাতসকালে ভয়াবহ দুর্ঘটনা, নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে সোজা পুকুরে যাত্রীবোঝাই বাস

দিদি যদি সিট গঠন করে তদন্ত করতে চাইছেন, তা করুক তাতে আমাদের কোনই আপত্তি নেই। কিন্তু সিবিআই তদন্ত আমরা চাইছি। সিটে যারা থাকছেন তাঁরা সিবিআইয়ের সঙ্গে সহযোগিতা রেখে তদন্ত করুক।’তিনি বলেন, ‘পুলিশ এসে আমার ভাইকে মেরে গিয়েছে। পুলিশের ভূমিকা আমরা দেখেছি। তাই পুলিশের ওপর আমরা আর ভরসা রাখতে পারছিনা।’ প্রসঙ্গত মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশে যে তদন্তকারী দল গঠন করা হয়েছে তার নেতৃত্বে আছেন রাজ্যের মুখ্যসচিব, ডিজির মত পদাধিকারীরা।

মঙ্গলবার দুপুরে আমতায় আনিসের বাড়িতে যখন পৌঁছে যান সিটের দায়িত্বে থাকা পুলিশের আধিকারিকরা সেখানে তাঁরা পৌঁছতেই ব্যাপক উত্তেজনা তৈরি হয়ে যায়। এলাকার মানুষ তাঁদের ঘিরে ধরে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন। এমনকি আনিসের পরিবারও বিক্ষোভে সামিল হন। তাঁদের দাবি, সমস্ত তদন্ত ক্যামেরার সামনে করতে হবে। কোনও লুকানো কিছু চলবে না বলেও হুঁশিয়ারি দেয়া হয়। তবে দীর্ঘ বিক্ষোভের পর অবশেষে তদন্ত শুরু করে দেন সিটের আধিকারিকরা। ঘটনা সম্পর্কে পূর্ণাঙ্গ জানার চেষ্টা করতে থাকেন।

আরও পড়ুন:  Malda: স্কুলের সামনে অপহরণের অভিযোগে গ্রেপ্তার যুবক
আরও পড়ুন:  SBSTC Bus Service : আজও থমকে বাসের চাকা

শুধু তাই নয়, যে বাড়ির ছাদ থেকে আনিসকে ঠেলে ফেলে দেওয়া হয় সেখান ঘটনাস্থলও ঘুরে দেখেন। তবে আনিসের বাবার কাছ থেকে ঘটনার বিষয়ে বিস্তারিত জানতে চাওয়া হলে সেখানেই ক্ষোভ উগরে দেন তিনি। সেই ক্ষোভের আগুন দেখা গেল বুধবারও। ২ পুলিশের গ্রেফতারিতেও সেই ক্ষোভ যে এতটুকু মেটেনি তা বুঝিয়ে দিল আনিসের পরিবার।

Featured article

%d bloggers like this: