34 C
Kolkata

Malda: ১০০ দিনের দুর্নীতির অভিযোগ খোদ শাসকদলের বিরুদ্ধে

নিজস্ব প্রতিবেদন: মালদায়ে ভুয়ো মেমো নম্বর দিয়ে ১০০ দিনের প্রকল্পে ৮ কোটি টাকার দুর্নীতির অভিযোগ উঠল তৃণমূল পরিচালিত পঞ্চায়েতের বিরূদ্ধে। এই নিয়ে এফআইআর দায়ের করা হয়েছে জেলাশাসকের কাছে।

যদিও এই ঘটনায় তৃণমূলকে নিশানা করেছে বিজেপি। তবে এনিয়ে অভিযুক্তদের পাশে দল থাকবে না বলে জানিয়েছে তৃণমূল। ৮ কোটি টাকার প্রকল্পে দুর্নীতির অভিযোগ উঠল মালদার ইংরেজবাজারে। প্রশাসন সূত্রে দাবি জানা যায়, তৃণমূল পরিচালিত যদুপুর এক নম্বর গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায় রাস্তা, ড্রেন তৈরি ও গাছ লাগানোর জন্য, গত বছর ৩০ জুলাই এই অনুমোদনপত্রটি পাশ হয়। পঞ্চায়েত সূত্রে খবর, এই অনুযায়ী বেশকিছু কাজও শুরু হয়ে গেছে। কিন্তু দুর্নীতির অভিযোগ পেতেই সেই কাজ বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছে জেলা প্রশাসন। খোদ জেলাশাসক জানিয়েছেন, প্রকল্প সংক্রান্ত কয়েকটি অভিযোগ যাচাই করতে গিয়ে, জানা যায় ভুয়ো মেমো নম্বরের ভিত্তিতে কাজের বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন:  BJP : দেশে ১৪৪ টি এবং বাংলায় ১৯ টি হারা আসনে নজর পদ্ম শিবিরের
আরও পড়ুন:  Srirampur : কি অদ্ভুত কাণ্ড ! শ্রীরামপুরে ভেসে উঠল রামসেতুর শিলা !

অনুমোদনপত্রে ১০০ দিনের প্রকল্পে জেলার নোডাল অফিসারের সই জাল করা হয়েছে। পুলিশ একদিকে ঘটনার তদন্ত করছে। পাশাপাশি প্রশাসনিকভাবে তদন্ত করছেন অতিরিক্ত জেলাশাসক বৈভব চৌধুরী। যাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত হবে, তাদের বিরুদ্ধে আইনত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।ইংরেজবাজারের বিডিও সৌগত চৌধুরী জানান, ”একটা ফেক মেমো নম্বরের ঘটনা সামনে এসেছে। ডিএমের নির্দেশে এফআইআর করেছি। ৮ কোটি টাকার প্রকল্প যদুপুর এক নম্বর গ্রাম পঞ্চায়েতে। প্রশ্ন MUST – সরকারি কর্মী ছাড়া কেউ কি এই কাজ করতে পারে? দক্ষিণ মালদা সাংগঠনিক জেলার সাধারণ সম্পাদক অম্লান ভাদুরি বলেন, ”মেমো নম্বরগুলিকে ফেক বলা হয়েছে, আসলে এগুলি ফেক নয়। এইভাবে কাজ করে, টাকা তুলে নেওয়া হচ্ছে। ৩ বছরে ১৪০০ কোটি টাকা দুর্নীতি হয়েছে মালদায়। তৃণমূলের নেতা-নেত্রী থেকে প্রশাসনের বড় কর্তারা জড়িত।”

আরও পড়ুন:  Missile Launch: চীনকে যোগ্য জবাব
আরও পড়ুন:  কোথায় কত শতাংশ ভোট পড়ল ? জানুন

Related posts:

Featured article