21 C
Kolkata

শাহের ছকে সাধারণ সাজতে শালপাতার থালায় মধ্যাহ্ন ভোজন মিঠুনের

নিজস্ব প্রতিবেদন: পাঁচ দিনের রাঢ়বঙ্গ সফরের দ্বিতীয় দিন বাঁকুড়া। এবার ফাটাকেষ্ট মিঠুন নয়, বিজেপির ভরসার সংগঠক গেরুয়া নেতা। প্রথম দিন পুরুলিয়ায় তৃণমূল স্তর চাঙ্গা করে বাঁকুড়ায় সভা করেন মিঠুন। শালতোড়ার বিজেপি বিধায়ক চন্দনা বাউড়ির বাড়িতে যান তিনি। যতই বিজেপি নেতা হন মিঠুন, বাঙালির কাছে আগে পর্দার মহাগুরুই বটে। চন্দনার কাছেও তাই ব্যতিক্রমী নন। ফুল, মালা, উত্তরীয় পরিয়ে মহিলারাই গ্রামে স্বাগত জানান তাঁকে। কিছু কর্মসূচি সেরে বেলা আড়াইটে নাগাদ বিজেপির রাজ্য সভাপতি সুকান্ত মজুমদার ও কেন্দ্রীয় শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী সুভাষ সরকারকে নিয়ে চন্দনার বাড়ি যান মধ্যাহ্ন ভোজ সারতে। কিছু কথাবার্তা সেরে পাত সাজিয়ে দেন চন্দনা। নিজের হাতে শালপাতা দিয়ে থালা তৈরি করেছেন বিজেপি বিধায়ক। মিঠুন যেতেই তাতে সেজে উঠল ভাত, পাঁচমেশালি তরকারি, ডাল, মাছ। বাদ ছিল না নায়কের পছন্দের আলু পোস্ত। খেতে খেতে মিঠুন বলেন, এই রান্নায় মিশে রয়েছে ভালোবাসা। এগুলো এমনিতেই সুস্বাদু হয়ে ওঠে। এটাই পছন্দের খাবার।’ বিধায়ক জানান, ‘মিঠুন চক্রবর্তীকে টিভির পর্দায় দেখেছিলাম। উনি কোনদিন আমার বাড়িতে খাবেন ভাবতেও পারিনি। তাঁকে নিজের হাতে খাবার পরিবেশন করে আমি ধন্য।’ উল্লেখ্য, নির্বাচনী প্রচারে গিয়ে সেই এলাকায় স্থানীয় বা নেতাদের বাড়িতে খাওয়া-দাওয়া একুশের নির্বাচনের প্রাক্কাল থেকে করে আসছেন দিল্লির নেতারা। তবুও ঝুলি একেবারেই ফাঁকা। পরে যদিও জানা গিয়েছিল অমিত শাহেদ এই খাবার পাঁচতারা রেস্তোরাঁ থেকে আনানো। নজর কাড়তে শুধুমাত্র দেখানো হতো যে সাধারণ মানুষের সঙ্গে কতটা মিলেমিশে যেতে পারেন তাঁরা। যদিও মানুষের বিশ্বাসের প্রতিফলন ভোটবাক্সে পড়েনি।

আরও পড়ুন:  Bjp: কী হবে বিজেপির?

Featured article

%d bloggers like this: