28 C
Kolkata

দূষণের বৃত্ততেই আটকে শিয়ালদহ

নিজস্ব সংবাদদাতা: প্লাস্টিক ক্রাশিং মেশিন থাকলেও রেলওয়ে ট্র্যাকেই ছড়িয়ে রয়েছে অন্যান্য প্লাস্টিক বর্জ্য। রেলওয়ে ট্র্যাকের উপর ছড়িয়ে রয়েছে পিচ্ছিল তেল। গত ২৫ ও ৩১ অগস্ট যথাক্রমে হাওড়া ও শিয়ালদহ স্টেশন পরিদর্শন করা হয়। পরিদর্শনের পর রাজ্য দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদের রিপোর্টে উঠে আসে শিয়ালদহ স্টেশনের দূষণের বেহাল ছবি।

  • জৈব বর্জ্য, প্লাস্টিক বর্জ্য, প্লাস্টিকের বোতল, অন্য বর্জ্য ব্যবস্থাপনা, রেলওয়ে ট্র্যাক পরিচ্ছন্নতা, বায়ো টয়লেট-সহ একাধিক ক্ষেত্রের অপরিচ্ছন্নতার বৃত্ত থেকে বেরিয়ে আসতেই পারেনি শিয়ালদহ স্টেশন।
  • কলকাতা তথা সারা দেশে অন্যতম ব্যস্ত এবং গুরুত্বপূর্ণ এই স্টেশনে  প্লাস্টিক বর্জ্য ডিসপোজালের কোনও ব্যবস্থাই নেই বলে জানাচ্ছে রাজ্য দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্যদের রিপোর্ট।

২০১৮ সালে জাতীয় পরিবেশ আদালতে হাওড়া স্টেশনের দূষণ নিয়ে দায়ের হয়। সেই মামলার শুনানিতে শিয়ালদহ স্টেশনের পরিচ্ছন্নতার বিষয়টি পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে খতিয়ে দেখে পূর্ব রেলওয়ে ও রাজ্য দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদকে রিপোর্ট দিতে নির্দেশ দেয় জাতীয় পরিবেশ আদালত। নির্দেশ মতো, সেইসময় শিয়ালদহের আধিকারিকদের নিয়ে স্টেশন চত্বর পরিদর্শন করেন পর্ষদ আধিকারীকরা।

  • রিপোর্টে জানা গিয়েছিল, স্টেশনের তেল মিশ্রিত নোংরা জল পরিশোধিত না হয়েই পুরসভার খালে গিয়ে মিশছে। একইভাবে খালে ফেলা হচ্ছে দূরপাল্লার ট্রেনের বর্জ্য।
  • সেইসময় স্টেশনে প্ল্যাস্টিক ক্যারিব্যাগ নিষিদ্ধ করা নিয়েও সরব হয়েছিলেন পরিবেশকর্মী সুভাষবাবু। পাশাপাশি সৌরশক্তির ব্যবহার, বৃষ্টির জলের পুনর্ব্যবহার ও নোংরা জল শোধন কেন্দ্র গড়তেও রেলকে সুপারিশ করেছিলেন পর্ষদকর্তারা। সেইসময় সমস্যার কথা মেনেও নিয়েছিলেন পূর্ব রেলের কর্তারাও।
  • তাঁরা জানিয়েছিলেন, বর্জ্য শোধন কেন্দ্র সহ বাকি সুপারিশগুলি কার্যকর হবে। স্টেশনে প্লাস্টিক বন্ধের জন্য সকলকে সচেতন করা হবে। যদিও বর্তমান ছবি বলছে অন্য কথা।
আরও পড়ুন:  Amir Khan : কোথায় আছে আমির ?
আরও পড়ুন:  Hand Transplant : বিশ্বে তৃতীয় এবং দেশে প্রথম এই বিরল অস্ত্রোপচার

২০১৮ সালে জাতীয় পরিবেশ আদালতের রায় মেনে শিয়ালদহ স্টেশন পরিদর্শনের পর আরও আটবার দূষণ সংক্রান্ত মামলাটি আদালতে উঠেছে। কিন্তু রাজ্য দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদের সাম্প্রতিক রিপোর্ট বলছে, অপরিচ্ছন্নতার মাপকাঠির নিরিখে শিয়ালদহ স্টেশনের অবস্থানের বিশেষ কিছুই পরিবর্তন হয়নি।

  • পরিবেশকর্মী সুভাষ দত্তর অভিযোগ, স্টেশনে সৌরবিদ্যুৎ প্যানেল বসানোর নির্দেশ থাকলেও তার বাস্তবায়িত হয়নি। জমি থাকলেও এখনও শুরুই হয়নি নিকাশি বর্জ্য পরিশোধন প্লান্ট তৈরির কাজ। সেক্ষেত্রে পরিচ্ছন্নতার নিরিখে অনেকটাই এগিয়ে হাওড়া স্টেশন।

রেলের তথ্য বলছে, প্রতিদিন শিয়ালদহ স্টেশনে প্রায় ১২ লক্ষ যাত্রীর পা পড়ে। যার মধ্যে ১ লক্ষের বেশি যাত্রী আসেন রাজ্যের বাইরে থেকে। পরিবেশকর্মীদের মতে, দূষণের প্রভাব পড়ছে যাত্রীদের ওপরেও। সম্প্রতি স্বচ্ছ ভারত অভিযানের দ্বিতীয় পর্যায়ের সূচনা করেছেন প্রধানমন্ত্রী। তারপরেও কলকাতা তথা সারা দেশের অন্যতম ব্যস্ত এবং গুরুত্বপূর্ণ এই শিয়ালদহ স্টেশনে স্বচ্ছতার এহেন বেহাল দশায় প্রশ্নের মুখে রেলের ভূমিকা।

আরও পড়ুন:  Kolkata: হয়েও হল না পুরো মিছিল, কালীঘাটেই আটকে দেওয়া হল ‘ভারত জোড়ো যাত্রা’

Featured article

%d bloggers like this: