27 C
Kolkata

দিঘা থেকে তৃনমূলকে খোঁচা শুভেন্দুর

নিজস্ব প্রতিবেদন : প্রথমে রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়ের পদত্যাগ, পরে বালির বিধায়ক বৈশালী ডালমিয়ার বহিষ্কার। এই দুই ঘটনা নিয়ে ঘাসফুলকে ভালোই খোঁচা দিলেন বিজেপি নেতা শুভেন্দু অধিকারী । এদিন দিঘার সভা থেকে তৃণমূল নেতাদের ‘নাক-কান কাটা’ বলে কটাক্ষ করেন তিনি। শুভেন্দুর কথায়, ‘কিছু নাক কাটা, কান কাটা লোকদের তৃণমূল বের করেছে ভোটের সময়।’

তিনি বিজেপিতে সক্রিয় হওয়ার পরই নন্দীগ্রামে সভা করেন মমতা। বকলমে নিজেকে এই কেন্দ্রের প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা করেন তৃণমূল নেত্রী। তারপর থেকে যেন আরও তেড়েফুঁড়ে নেমেছেন শুভেন্দু। রীতিমতো চ্যালেঞ্জ ছুড়ে বলেছেন, এক জায়গা থেকেই লড়তে হবে মমতাকে। এদিন শ্লেষাত্মক ভঙ্গিতে তিনি বলেন, “খুব ভাল লাগছে এতদিনে নন্দীগ্রামে কথা মনে পড়েছে দেখে।

আরও পড়ুন:  SSC Scam : ১২ ঘন্টার ম্যারাথন জিজ্ঞসাবাদ পার্থর জামাইকে
আরও পড়ুন:  Suvendu Adhikari: রাজ্যের আর্থিক তছরুপে কেন্দ্রীয় হস্তক্ষেপের আর্জি শুভেন্দুর

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নন্দীগ্রামে যদি দাঁড়ায় আমি হারাব।” নাম না করে তৃণমূলের মদন মিত্র, কুণাল ঘোষ ও ছত্রধর মাহাতোদের উদ্দেশে তাঁর কটাক্ষ, “কে সাড়ে তিন বছর সারদা মামলায় জেল খেটেছে। কে একুশ মাস জেল খাটল, কে বা আবার দেশদ্রোহী আইনে জেল খাটা আসামি। ভোটের সময় এদের বার করেছে তৃণমূল। ওদের নাম নেব না।”

শুভেন্দু অধিকারী এ দিন বলেন, “স্থানীয় কিছু তৃণমূল নেতাকে চিনি, যারা আগে ছেঁড়া চটি পরে ঘুরতো আর পোড়া বিড়ি খেত, এখন কেউ ৫০ কোটি বা কেউ ১০০ কোটির মালিক। এখন তৃণমূলে প্রতিদিন মন্ত্রীরা পদত্যাগ করছেই। ভোটার তো আগেই পালিয়েছে। টিভি খুললেই দেখছি পদত্যাগ, বলছে আমরা আহত আর পারছি না। কেই বা কর্মচারী হয়ে থাকতে চায়, রাজনৈতিক সহকর্মীর মর্যাদা চায়।”

আরও পড়ুন:  Durga Pujo 2022 : মেয়ের হাতে মায়ের শুভরম্ভ

Featured article

%d bloggers like this: