27 C
Kolkata

বাজারে হঠাত্‍ অভিযান

নিজস্ব সংবাদদাতা : আলু, পটল থেকে ঝিঙে, লঙ্কা—জলপাইগুড়ি বাজারে সবজিতে হাত দিলেই ছ্যাঁকা খাচ্ছে আমজনতা। জিনিসের দাম নিয়ে বিস্তর ক্ষোভ জমছিল নাগরিকদের মধ্যে। অভিযোগ পেয়ে রবিবার সকালে জলপাইগুড়ি বাজারে হানা দিল জেলা পুলিশের দুর্নীতি দমন শাখা। বাজারে আলুর দাম হুহু করে বাড়ছে অভিযোগ আসছিল বিভিন্ন মহল থেকে। কোতয়ালী থানার পুলিশকে সঙ্গে নিয়ে জলপাইগুড়ি দিনবাজার এলাকায় বিভিন্ন খুচরা ব্যবসায়ী ও পাইকারি আলু ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলেন আধিকারিকরা। আলুর পাশাপাশি সবজি বাজারেও ব্যবসায়ীদের সাথে কথা বলেন দুর্নীতি দমন শাখার আধিকারিকরা। আলু ৩৫-৪০টাকা কেজি, বেগুন -৭০-৮০কেজি, পোটল -১০০ টাকা কেজি, কাচালঙ্কা -১৫০টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে জলপাইগুড়ির বাজারে। এক ক্রেতা রসিকতা করে বলেছেন , ‘লঙ্কা আর খেতে হচ্ছে না। দাম শুনেই ঝাঁজ দিব্যি টের পাচ্ছি।’বাজারে আলু সহ অন্যান্য সবজির দাম আকাশছোয়া। এর মধ্যে কোনো কালো বাজারি হচ্ছেকিনা সেটার তদন্ত করতে বাজারে দুর্নীতি দমন শাখার আধিকারিকদের অভিযান। বাজারে ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলে তাদের সতর্ক করা হয়ে যেনো কোনোভাবে কালোবাজারি না করা হয়। ক্রেতাদের অভিযোগ, গত কয়েক সপ্তাহে সবজির দাম প্রায় দুই থেকে তিন গুণ বেড়েছে। অনেকের অভিযোগ, কৃত্রিম ভাবে সংকট তৈরি করে দাম বাড়ানো হচ্ছে। এদিকে বিক্রেতাদের দাবি, ‘বর্ষায় জমিতে জল জমে যাওয়ায় অনেক ফসল নষ্ট হয়ে গিয়েছে। তাই বাজারে এখন সবজির আমদানি অনেক কম। আমদানি কমে যাওয়ার ফলেই সবজির দাম হঠাত্‍ করে অনেকটা বেড়ে গিয়েছে।’ আপাতত মাস দেড়েক সবজির দাম কমার কোনও আশা বলেই মনে করছেন সবজি বিক্রেতারা। দুর্নীতি দমন শাখার আধিকারিক মৃদুল দত্ত জানিয়েছেন প্রাকৃতিক দুর্যোগের জন্য বাজারে আলু সহ অন্যান্য সবজির দাম একটু বেশি তবে আমরা নজর রাখছি যেনো কালোবাজারি না করা হয়।উত্তরবঙ্গের বিস্তীর্ণ এলাকা ভারী বৃষ্টিতে জলমগ্ন। ক্ষতি হয়েছে কৃষিতেও। অনেকের মতে, চাষের জমিতে ফসলের ক্ষতির ফলেই এই দাম বৃদ্ধি। তবে সব মিলিয়ে সাধারণ নাগরিকদের হাঁসফাঁস অবস্থা।

আরও পড়ুন:  Fire: বিধ্বংসী অগ্নিকাণ্ড বোলপুরের বেসরকারি ব্যাংকে, রয়েছে কেষ্ট'র অ্যাকাউন্ট

Featured article

%d bloggers like this: