28 C
Kolkata

চাকরি দেওয়ার নামে ভুয়ো নিয়োগপত্র বিলি! ক্ষোভ চাকরিপ্রার্থীদের

নিজস্ব প্রতিবেদন: স্কুল শিক্ষক নিয়োগে দুর্নীতির অভিযোগ ঘিরে উত্তাল রাজ্য রাজনীতি। এরমধ্যেই আবার কারিগরি শিক্ষায় চাকরিপ্রার্থীদের সঙ্গে প্রতারণার অভিযোগ সামনে আসল। সম্প্রতি এক সরকারি অনুষ্ঠানের মঞ্চ থেকে কয়েক হাজার চাকরিপ্রার্থীকে নিয়োগপত্র বিলি করার কথা ঘোষণা করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। প্রতিশ্রুতি মত চাকরিপ্রার্থীদের কাছে ই-মেইল মারফৎ পৌঁছায় সেই নিয়োগপত্র। কিন্তু এবার সেই নিয়োগপত্র নিয়েই বিতর্ক শুরু হয়েছে। বিতরণ করা চাকরির নিয়োগপত্রের কয়েকটি নাকি ভুয়ো, এমনই চাঞ্চল্যকর অভিযোগ করলেন চাকরিপ্রার্থীরা। আর তা নিয়ে রাজনৈতিক তরজা তুঙ্গে।

চাকরিপ্রার্থীদের একাংশের অভিযোগ, তাঁরা যে নিয়োগপত্র পেয়েছেন, তা আদতে ভুয়ো। এই বিষয়ে ইন্দ্রনীল ভট্টাচার্য নামক এক চাকরিপ্রার্থী বলেন, ‘আমি নিয়োগপত্র পেয়ে ওই কোম্পানিতে ফোন করে যোগাযোগ করি। হোয়াটসঅ্যাপে ডকুমেন্টস চায়। আমি পাঠিয়ে দিলেও কোনও রিপ্লাই পাওয়া যায়নি। একদিন পর হুগলির ইনস্টিটিউট থেকে ফোন করে বলা হয়, যে জেরক্স কাগজ বা লিস্ট দেওয়া হয়েছে সেটা আদতে নিয়োগপত্র নয়। আমরা যতক্ষণ না কল করি, বা কোম্পানি কল করে, তোমরা যাবে না। এখন বুঝতে পারছি, পুরোটাই ভুয়ো। আমাদের এই ভাবে হেনস্থা করার কি দরকার ছিল!’

আরও পড়ুন:  Durga Puja 2022 : দেবাদি দেব মহা দেব আবার বিয়ে করছেন !
আরও পড়ুন:  Howrah Municipality Area: প্যারাসিটামল নিলেই নথিভুক্ত করতে হবে নাম, ঠিকানা ও ফোন নম্বর

প্রসঙ্গত, নেতাজি ইন্ডোর স্টেডিয়ামে, উৎকর্ষ বাংলার অনুষ্ঠানের পর এই নিয়োগপত্র দেওয়া হয়। গুজরাটের এক সংস্থার নামে নিয়োগপত্র দেওয়া হয়েছিল অনেককে। এই আবহে হুগলি জেলার অনেক আবেদনকারী ফোন করে জানতে পারেন যে তারা যে চিঠি পেয়েছে তা ভুয়ো। সাম্প্রতিক এক রিপোর্টে দাবি করা হয়, গুজরাটের যে সংস্থার নিয়োগপত্র দেওয়া হয়েছে, সেই সংস্থার সংস্থার সেন্টার ম্যানেজার বেদপ্রকাশ সিং জানিয়েছেন, তাঁরা গুজরাত, উত্তরপ্রদেশ, হিমাচলপ্রদেশ, মধ্যপ্রদেশ, বিহার এবং ঝাড়খণ্ডের সঙ্গে এই ধরনের প্রশিক্ষণের কাজে যুক্ত। কিন্তু এখনও পর্যন্ত পশ্চিমবঙ্গের তরফে তাঁদের সঙ্গে এই নিয়ে কোনও যোগাযোগই করা হয়নি। এই বিষয়ে রাজনৈতিক তরজা শুরু হতেই তৃণমূলের রাজ্য সাধারণ সম্পাদক কুণাল ঘোষ বলেন, ‘আমরা চাই বিভাগীয় তদন্ত হোক। যাঁদের গাফিলতিতে এই ঘটনা, তাঁদের বিরুদ্ধে কড়া পদক্ষেপ করা উচিত।’

আরও পড়ুন:  SBSTC Bus Service : আজও থমকে বাসের চাকা

Featured article

%d bloggers like this: