24 C
Kolkata

‌টিকটকের পরিবর্তে ‘টুকটাক’

নিজস্ব সংবাদদাতা :: টিকটক’-এর বিকল্প ‘টুকটাক’ বানিয়ে তাক লাগালেন পুরুলিয়ার ঝালদার ছেলে প্রসেনজিত্‍ কুইরি। ঝালদার পুস্তি গ্রামের বছর ২২-এর যুবক প্রসেনজিত্‍ গত ৫ জুলাই এই অ্যাপ গুগল প্লে স্টোরে আপলোড করেন। তারপর প্রায় চার হাজার জনের বেশি এই অ্যাপ ডাউনলোড করেছেন। একেবারে টিকটকের মতো সব সুবিধা এখানে পাওয়া যাবে বলে দাবি প্রসেনজিতের। প্রসেনজিত্‍ অত্যন্ত মেধাবী ছেলে। ঝাড়খণ্ডের রাঁচির ডুরান্ড কলেজ থেকে বাণিজ্যে স্নাতক। সেই ছেলেবেলা থেকেই তাঁর প্রযুক্তিতে ঝোঁক। কারিগরি বিষয়ে যেন নেশার মতো ডুবে থাকেন। লেখাপড়া চালিয়ে গেলেও প্রযুক্তি নিয়ে চলতে থাকে তাঁর নানান গবেষণা। ঝালদা এক ব্লকের সত্যভামা বিদ্যাপীঠ থেকে উচ্চমাধ্যমিক পাশ করে ঝাড়খণ্ডের কলেজ থেকে স্নাতক হন তিনি । তারপরই প্রযুক্তি নিয়ে গবেষণার কাজকর্মকে এগিয়ে নিয়ে যেতে একটি সংস্থা খুলে বসেন । লাদাখে ২০ ভারতীয় জওয়ান শহিদ হওয়ার পরেই কেন্দ্র সরকার টিকটক-সহ একাধিক চিনা অ্যাপ ব্যান করে দেয়। চীনকে উচিত শিক্ষা দিতে এরপরেই প্রসেনজিত্‍ কুইরি তাঁর বন্ধুবান্ধব নিয়ে টিকটকের বিকল্প ‘টুকটাক’ অ্যাপ নিয়ে আসে। প্রসেনজিত জানিয়েছেন , এই অ্যাপ্লিকেশনে টিকটকের মতোই সুবিধা মিলবে।বর্তমানে তার তৈরি ‘টুকটাক’ অ্যাপ্লিকেশনটি প্লে স্টোর থেকে ডাউনলোড করে সহজেই ভিডিও তৈরি করা সম্ভব হচ্ছে। ইতিমধ্যে খুব সাড়াও মিলেছে। ‘টুকটাক’ – এর আবিষ্কর্তা প্রসেনজিৎ জানিয়েছেন,এই অ্যাপ নিয়ে তিনি ভীষণ আশাবাদী। তবে এখনও এই অ্যাপ বাণিজ্যিক ভাবে কাজে লাগাননি তিনি । বতর্মানে সুদূর মুম্বইয়ে ডেটা সেন্টার করে এই কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন। আগামী দিনে গ্রামেই একটি সার্ভার বানানোর কথা ভাবছেন। তৈরি করবেন আরও নানা ধরনের অ্যাপ্লিকেশন, তাও সম্পূর্ণ ভারতীয় প্রযুক্তিতে। ছেলের এই কাজে ভীষণই উত্‍সাহী তাঁর বাবা পেশায় পোস্টমাস্টার নীলকন্ঠ প্রসাদ কুইরি। তিনি জানান, ছেলে প্রসেনজিত্‍ ক্লাস নাইনে থাকতেই নিজের মেধাকে কাজে লাগিয়ে শুরু করেছিলেন ওয়েব ডেভেলপমেন্টের কাজ। ২০১৮ সালে একটি সংস্থা খোলেন। আর ধীরে ধীরে সেখান থেকেই উত্থান শুরু হয় তাঁর কাজের। ‌

আরও পড়ুন:  MacDonald: জানেন এই সংস্থায় কতজন কাজ করে?

Featured article

%d bloggers like this: