21 C
Kolkata

Budget 2022 : ‘এ বারের কেন্দ্রীয় বাজেট পেগাসাস-স্পিন বাজেট, সাধারণ মানুষের প্রাপ্য শূন্য’

নিজস্ব সংবাদদাতা : কেন্দ্রীয় বাজেট নিয়ে সমালোচনায় সরব হলেন বিরোধীরা। বাজেটে সাধারণ মানুষকে বঞ্চিত করা হয়েছে বলে এ বার অভিযোগ করলেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁর অভিযোগ, এ বারের কেন্দ্রীয় বাজেটে থেকে সাধারণ মানুষের প্রাপ্য শূন্য। বড় বড় কথা বলা ছাড়া কোনও কিছুকেই গুরুত্ব দেয়নি কেন্দ্রীয় সরকার। সাধারণ মানুষের জন্য এই বাজেট একটা শূন্য মাত্র। টুইটে মুখ্যমন্ত্রী লেখেন, ‘সাধারণ মানুষের জন্য এই বাজেট শূন্য, তাঁরা বেকারত্ব এবং মুদ্রাস্ফীতির দ্বারা পিষ্ট হচ্ছেন। সরকার বড় বড় কথায় হারিয়ে গিয়েছে, কিছুই বোঝাতে পারেনি তারা। এটি পেগাসাস স্পিন বাজেট।’

মমতা ছাড়াও টুইট করে আক্রমণ শানিয়েছেন তৃণমূলের রাজ্যসভার দলনেতা ডেরেক ও’ব্রায়েন। হিরের উপর আমদানি শুল্ক কমানোর বিষয়টিকে কটাক্ষ করে তিনি লিখেছেন, ‘হিরে এই সরকারের পরম বন্ধু। বাকি কৃষক, মধ্যবিত্ত, দিন এনে দিন খাওয়া মানুষ ও বেকারদের জন্য প্রধানমন্ত্রী কিছুই করেননি।’

আরও পড়ুন:  Earthquake: রাতে কেঁপে উঠল রাজধানী

কেন্দ্রের এই বাজেট আর্থিক বৃদ্ধির কোনও দিশা নেই, বললেন অমিত মিত্র। ‘কেন্দ্রের এই বাজেট আর্থিক বৃদ্ধির কোনও দিশা নেই। গরিব-মধ্যবিত্ত কারও জন্য কিছু নেই। আয়কর কাঠামো অপরিবর্তিত। কেন্দ্রের এই বাজেট হয় একটা ভাঁওতা, নয়তো সদিচ্ছার অভাব’, মন্তব্য মুখ্যমন্ত্রীর অর্থ বিষয়ক প্রধান উপদেষ্টা অমিত মিত্রের

তিনি যে এই ধাঁচেই খোঁচা দেবেন, প্রত্যাশিতই ছিল। সেই প্রত্যাশা পূরণও করলেন রাহুল গান্ধী। বাজেট নিয়ে তীব্র খোঁচা দিলেন মোদি সরকারকে। মধ্যবিত্ত, গরিব, কৃষকরা কী পেলেন, সওয়াল করলেন সেই নিয়েই। টুইটারে রাহুল লিখলেন, ‘‌মোদি সরকারের শূন্য অঙ্কের বাজেট। বেতনভোগী, মধ্যবিত্ত, গরিব এবং বঞ্চিত, যুবসমাজ, কৃষক, অতি ক্ষুদ্র, ক্ষুদ্র, মাঝারি শিল্পের জন্য কিচ্ছু নেই।’‌ একই সুরে কংগ্রেস সাংসদ শশী থারুর বললেন, ‘‌হতাশাজনক বাজেট। অচ্ছে দিন আরও দূরে ঠেলে দেওয়া হল। মধ্যবিত্তের জন্য কিছু নেই।’‌

আরও পড়ুন:  Narendra Modi: মায়ের সঙ্গে সাক্ষাৎ প্রধানমন্ত্রীর

‘অতিমারীর সময় স্বস্তি চাইছিলেন দেশের চাকরিজীবী ও মধ্যবিত্ত শ্রেণি। মুদ্রাস্ফীতি ও বেতন সঙ্কোচনের সময় এটাই ছিল তাঁদের আশা।কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী ও প্রধানমন্ত্রী তাঁদের গভীরভাবে হতাশ করেছেন। এটা দেশের চাকরিজীবী ও মধ্যবিত্ত শ্রেণির প্রতি বিশ্বাসঘাতকতা’,ট্যুইট কংগ্রেস নেতা রণদীপ সুরজেওয়ালার।

‘এই বাজেট কার জন্য? ১০ % ধনী মানুষের হাতে দেশের মোট সম্পদের ৭৫ %। নীচের দিকের ৬০% মানুষের হাতে ৫%ও নেই। বেকারত্ব, দারিদ্র, ক্ষুধা ক্রমশ বেড়েছে। কিন্তু তারপরেও এই অতিমারীতে যাঁরা সবথেকে বেশি লাভ করেছেন তাঁদের ওপর কর চাপবে না কেন?’,বাজেট ২০২২ প্রসঙ্গে কটাক্ষ সিপিএম-এর সাধারণ সম্পাদক সীতারাম ইয়েচুরির।

Featured article

%d bloggers like this: